চকরিয়ায় জমি বিরোধে খুন দ্বীন মোহাম্মদ হত্যায় আরো ২জনকে অর্ন্তভূক্তির চেয়ে আবেদন, হুমকিতে বাদী ও স্বাক্ষী

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়া উপজেলার ঢেমুশিয়া ইউনিয়য় জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে মৃত মাস্টার হাফেজ আহমদের পুত্র দ্বীন মোহাম্মদ হত্যা মামলায় আরো ২জনকে অর্ন্তভূক্তির আদেশ চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে আবেদন করেছেন নিহতের স্ত্রী। আদালতে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। এদিকে মামলার ৩নং আসামী গ্রেফতার হলেও অভিযুক্ত অপরাপর পলাতক আসামীরা মামলা তুলে নিতে বাদী ও স্বাক্ষীদের নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। ফলে নিহত দ্বীন মোহাম্মদের পরিবার উল্টো নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন বলে জানান।
অভিযোগে জানাগেছে, উপজেলার ঢেমুশিয়া মৌজার গান্ধীপাড়া গ্রামে মৃত মাস্টার হাফেজ আহমদের পুত্র দ্বীন মোহাম্মদের মালিকানাধীন বিএস খতিয়ান নং ৫৭৫, সৃজিত বিএস খতিয়ান নং ১২২৪, দাগ নং ১৬৫১ চাষাবাদী ধান্য জমিতে চলতি সনের গত ২৭আগষ্ট বিকেল ৪টায় চাষাবাদ করতে গেলে একদল উশৃংখল, লাঠিয়াল ও অস্ত্রধারী বাহিনী পূর্বপরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়। হামলায় জমি মালিক দ্বীন মোহাম্মদ (৬৬), তার স্ত্রী হামিদা বেগম, ছেলে মিজবাহ উদ্দিন (২৮)কে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। পরিবারের সদস্যরা ও স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে ১১দিন পর্যন্ত মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭সেপেম্বর সকালে মারা যান জমি মালিক দ্বীন মোহাম্মদ। চিকিৎসাধীণ অবস্থায় দ্বীন মোহাম্মদের মৃত্যুর পূর্বে তার ছোট বোন ইছমত ছরওয়ার খানম (৪৮) বাদী হয়ে মারধর ও জবর দখল চেষ্টার অভিযোগ এনে ঘটনার দিনই চকরিয়া থানায় ৬জনকে অভিযুক্ত করে অজ্ঞাত আরো আসামী দেখিয়ে মামলা (নং ৩৫,জিআর ৩৯৯/১৯) দায়ের করেন। আসামীরা হলেন; নিহতের ভাতিজা ইমরুল, ভাইয়ের স্ত্রী আফসির আরা বেগম, ভাই দোস্ত মোহাম্মদ, মেয়ে এমি সোলতানা ও হিফজুহুমা, মিনারুল ইসলামের স্ত্রী দিলদারনাজ নাঈম আকফা। ওই মামলায় থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩নং আসামী সহোদর দোস্ত মোহাম্মদকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে নিহতের দাফন ও ফাতেহা শেষ করে মরহুম দ্বীন মোহাম্মদের স্ত্রী হামিদা বেগম বাদী হয়ে গত ২৪ অক্টোবর’১৯ইং চকরিয়া আদালতে হত্যা মামলায় পরিকল্পনাকারী হিসেবে নতুন করে দুইজনকে আসামীসহ ৩০২ধারা অর্ন্তভূক্তি করার জন্য আবেদন করেন। বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগ আমলে নিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। নতুন দুইজন অভিযুক্ত হলেন; ঢেমুশিয়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের হেতালিয়া পাড়া গ্রামের উলা মিয়ার পুত্র নুরুল আলম ও ৪নং ওয়ার্ডের ছয়কুড়ি টিক্কাপাড়া গ্রামের মাইমুনুল হকের পুত্র মো: মহসিন।
জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী অফিসার ও চকরিয়া থানার উপপরিদর্শক মো: মফিজুর রহমান বলেন, থানায় রুজুকৃত মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে লিপিবদ্ধ হওয়ায় ঘটনাটির নতুন মোড় নিয়েছে। অপরদিকে বিজ্ঞ আদালতে নতুন করে দুইজন আসামী অর্ন্তভূক্ত করার আবেদন করায় তা আদালতের নির্দেশে তদন্ত চলছে। খুব শীঘ্রই তদন্ত প্রতিবেদন বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হবে। এছাড়াও অভিযুক্ত আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.