চকরিয়ায় ছাত্রলীগ নেতা তারেককে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় ১০জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জসীট

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি ও পৌরসভা ৮নং ওয়ার্ডের মাস্টার পাড়া এলাকার জাকের আলমের পুত্র তারেকুল ইসলাম রাহিতকে দলিয় কোন্দলে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় বহিস্কৃত ছাত্রলীগ নেতা আরহান মাহমুদ রুবেলসহ ১০জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জসীট) দিয়েছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। ওই মামলায় ২জন আসামী বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছেন। অবশিষ্টরা পলাতক। ইতিমধ্যে মামলায় অভিযুক্ত আসামীদেরকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বহিস্কার করে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে।
প্রাপ্ত অভিযোগ ও মামলার চার্জসীট সূত্রে জানাগেছে, চলতি সনের ২৪ এপ্রিল রাত ১১.৪০টায় মগবাজার এলাকায় মোটর সাইকেল যোগে একটি দাওয়াতে যান চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি ও জেলা ছাত্রলীগের সদস্য তারেকুল ইসলাম প্রকাশ রাহিত (২৭)। ওই সময় অভিযুক্ত আসামীরা পূর্ব থেকে ওৎপেতে থেকে ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে তাকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় তারেকের ছোট ভাই তানজিমুল ইসলাম (২৬) বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা (নং ৬০/জিআর ২০১/১৯) দায়ের করেন। ২নং আসামী পৌরসভা পশ্চিম করাইয়াঘোনা গ্রামের শফিকুর রহমানের পুত্র মো: ইরফান ও ৮নং আসামী ভরামুহুরী উকিল পাড়া গ্রামের মফিজুর রহমান প্রকাশ হেলালের পুত্র মোস্তফা সোহার্তু মাহমুদকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও চকরিয়া থানার উপপরিদর্শক মো: কামরুল ইসলাম মামলার যাবতীয় তদন্ত শেষে গত ২৭ সেপ্টেম্বর’১৯ইং অভিযোগপত্র (চার্জসীট) দাখিল করেন। চার্জসীটে ধৃত ২জনসহ ১০জনের নামই আসামী হিসেবে রাখা হয়েছে। অভিযুক্তরা হলেন; উপজেলা ছাত্রলীগের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার করাইয়াঘোনা গ্রামের জমির উদ্দিন মেম্বারের পুত্র আরহান মাহমুদ রুবেল, ভরামুহুরী গ্রামের অজিত দে’র পুত্র টিংকু দে, বিনামারা গ্রামের মোহাম্মদ হোছনের পুত্র মো: ইউসুফ বিন হোছাইন, মধ্যম সুরাজপুর গ্রামের মৃত আবদুল মোনাফের পুত্র মো: কানন, ফাসিয়াখালী পশ্চিম সিকদারপাড়া গ্রামের মাহবুবুল আলম মেম্বারের পুত্র মো: আলিফ, হালকাকারা গ্রামের জাফর আলমের ছেলে মিরাজ উদ্দিন মিরাজ, কৈয়ারবিল সুশীল পাড়া গ্রামের সাধন চন্দ্র সুশীলের পুত্র রাসেল চন্দ্র সুশীল ও পৌরসভার আতব্বরপাড়া গ্রামের নুরুল আমিন ড্রাইভারের পুত্র মো: ইয়ামিন প্রকাশ ইয়াছিনকে। চার্জসীটে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো: কামরুল ইসলাম মামলার তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন মর্মে উল্লেখ করেন এবং বিজ্ঞ আদালতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অভিযোগপত্র নং ৪৬৮/১৯, ধারা ৩৪১/৩২৩/৩২৪/৩২৫/৩০৭/৩৭৯/৫০৬/৩৪ পেনাল কোড দাখিল করেন।
হামলার শিকার জেলা ছাত্রলীগ নেতা তারেকুল ইসলাম রাহিত বলেন, আমি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে ন্যায় বিচার পেয়েছি। তেমনিভাবে থানা পুলিশও আমার সাথে সৌহার্দ্দপূর্ণ আচরণ করেছেন। তিনি বলেন, অভিযুক্ত আসামীরা বর্তমানে প্রকাশ্যে ঘুরা ফেরা করছে এবং মামলা প্রত্যাহার করে নিতে নানাভাবে হুমকি ধমকি দেওয়া হচ্ছে। তিনি পুলিশ প্রশাসন এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে পূর্বের ন্যায় সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য আহবান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.