ফাইতংয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল ও বিক্রিত জমি দখল দিতে না পেরে অপহরণ নাটক!

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ার সীমান্তবর্তী ফাইতংয়ে পারিবারিক জমি-জমার পূর্বশত্রুতার বিরোধকে কেন্দ্র করে মো: ফারুক নামে এক ব্যক্তি প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজে নিজেই আত্মগোপনে থেকে অপহরণ নাটক সাজাচ্ছেন। প্রকাশ্য দিবালোকে এই নাটকের জন্ম দিলেও এলাকার একজন লোকও জানেননা প্রায় অর্ধ শত বছর বয়সী মো: ফারুককে অপহরণ কিংবা নিখোঁজের বিষয়টি। এনিয়ে ফারুক গংয়ের হাতে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষতিগ্রস্ত একটি পরিবার ও স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।
জানাগেছে, পার্বত্য বান্দরবান জেলার লামা উপজেলাধীন ফাইতং ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ফাদুর ছড়া গ্রামে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে মৃত তফুর আলীর পুত্র আবদুল করিম (বান্ডু) গং। তাদের সাথে পারিবারিক জমি-জমা নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি করে চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের হাছিমার কাটা গ্রামের বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ছেলে মো: ফারুক (৪৫) গং। এনিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে থানা ও আদালতে একাধিক মামলা মোকাদ্দমা রয়েছে। বিরোধকৃত জমি নিয়ে স্থানীয়ভাবে ও আদালতের মাধ্যমে আবদুল করিম (বান্ডু) গং ডিক্রি প্রাপ্ত হয়েছেন। কিন্তু ডিক্রিপ্রাপ্ত এসব জমি জোর পূর্বক জবর দখলে নিতে নানাভাবে হুমকি ধমকি ও মিথ্যা মামলার ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখে মো: ফারুক গং। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১১ সেপ্টেম্বর বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত সময়ে ৪৫ বছর বয়সী মো: ফারুককে প্রকাশ্য দিবালোকে নিখোঁজ হয়েছে দাবী করে ১২ সেপ্টেম্বর লামা থানায় কথিত জিডি করেন। অথচ: স্থানীয় এলাকাবাসী ও ফাইতং ষ্টেশন বাজারের শতশত লোকজনের দাবী মো: ফারুক নিখোঁজ কিংবা অপহরণ কিছুই হয়নি এবং এধরণের কোন ঘটনাই ঘটেনি। স্থানীয়দের দাবী প্রতিপক্ষ আবদুল করিম (বান্ডু) গংকে ফাঁসাতেই এই নাটকের জন্ম দিয়েছেন। যা সরিজমিনে তদন্ত করলে আসল রহস্য উন্মোচন হবে।
আবদুল করিম (বান্ডু) জানিয়েছেন, তাদের ভোগ দখলীয় জমি অবৈধভাবে জবর দখলে নিতে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী এনে একের পর এক মিথ্যা ঘটনার জন্ম দিচ্ছে মো: ফারুক গং। তিনি জানান, জমি বিরোধ নিয়ে আত্মগোপনে থাকা মো: ফারুক অচিরেই বের হয়ে আসবে। পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি আমাদের বিনীত অনুরোধ মো: ফারুকের আত্মীয় স্বজনকে সঠিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে আত্ম গোপনে থাকার সব তথ্য উদঘাটন হবে। উল্লেখিত মো: ফারুক গং কুতুবদিয়া, মহেশখালী, চকরিয়া ও পেকুয়ার বেশ কিছু ব্যক্তিকে জমি বিক্রি করে জমির দখল বুঝিয়ে দিতে না পেরে ইতিপূর্বেও বেশ কিছুদিন আত্মগোপনে ছিল। জমি ক্রেতাদের কাছ থেকে রক্ষা পেতেও নিজে নিজেই এই আত্মগোপন হতে পারে। মো: ফারুকের বিরুদ্ধে লামা থানায় জিআর মামলা জিআর নং ৯৪/১৮, বিজ্ঞ সিনিয়র সহকারী জজ আদালাত বান্দরবানে মামলা অপর নং১২৯/১৭সহ একাধিক মামলা-মোকাদ্দমা রয়েছে। এছাড়াও মো: ফারুক গং আবদুল করিম (বান্ডু) গংয়ের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ যুগ্ম জেলা জজ আদালতে অপর মামলা নং ১৯/১৮, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত লামায় মামলা সিআর নং ১০২/১৯, ননজিআর ১৬/১৯ সহ বেশ কিছু মিথ্যা ও হয়রাণী মূলক মামলা করেছে। যা তদন্তে মিথ্যাও প্রমাণিত হচ্ছে। ইতিপূর্বে আত্মগোপনে থাকা মো: ফারুক গং মহেশখালী ও চকরিয়াসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী এনে আবদুল করিম (বান্ডু) গংয়ের ভোগ দখলীয় জমি জোর পূর্বক জবর দখলে নিতে গিয়ে আবদুল করিম (বান্ডু)র কলেজ পড়–য়া মেয়েকে গাছের সাথে বেধে নির্মম নির্যাতন ও মারধর করে। যা জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যায়। এ ন্যাক্কারজনক ঘটনার পরও অভিযুক্ত দখলবাজ মো: ফারুক আত্মগোপনে থেকে নতুন করে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য পরিকল্পিত ঘটনার জন্ম দিচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে লামা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আপ্পেলা রাজু নাহা জানিয়েছেন, মো: ফারুক নামে ৪৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি নিখোজের বিষয়ে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন তার পরিবার। তবে ওই জিডির বিষয়ে অধিকতর তদন্ত করা হচ্ছে। তবে এ বিষয়ে নতুন করে কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। বক্তব্যের এক পর্যায়ে মো: ফারুক অপহরণ হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি অপহরণ হবেনা। বাজারের উপর থেকে তাকে অপহরণ করা হলে নিশ্চয় বাজারে চলাচলরত কোন লোকজন দেখতো। এরপরও বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে এবং আত্মগোপন কিংবা নিখোঁজের বিষয়ে নিকটাত্বীয় এবং সোর্স মারফতে খবরা-খবর নেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.