চকরিয়ায় পরকিয়া প্রেমে আসক্ত ৩সন্তানের জননী ২ সন্তানের জনকের সাথে লাপাত্তা

জহিরুল আলম সাগর,চকরিয়া
চকরিয়ায় পরকিয়া প্রেমে আসক্ত ৩ সন্তানের জননী ২ সন্তানের জনক প্রেমিকের সাথে উধাও হয়েছে। এমনকি ৩ সন্তানের জননীর বোনের ইন্ধনে স্বামী সংসারের নগদ ৬ লাখ ৭০ হাজার টাকাও হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে হতভাগা স্বামী মোহাম্মদ বাদনের পুত্র মোহাম্মদ আশেক বাদী হয়ে দুই বোনকে আসামী করে বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত,কক্সবাজারে মিচ মামলা (নং এমআর ৮৫/১৯) দায়ের করেছে। মামলায় পরকিয়ার হাত থেকে স্ত্রীকে উদ্ধারের আবেদনও করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের বানিয়ারছড়া পূর্বকুল এলাকায়।
স্বামী মো: আশেক মামলার আর্জিতে এবং সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগে জানান, বিগত ২০০৩সালে মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ি ইউনিয়নের মো: ইসমাইলের মেয়ে খতিজা বেগমের সাথে ইসলামী শরীয়াহ মতে বিয়ে হয় তার (মো: আশেকের)। সুন্দর সংসারে ২ পুত্র ও ১ কন্যা সন্তান রয়েছে। বড় ছেলের বয়স বর্তমানে ১২ বছর, মেয়ে ৯ বছর ও ছোট ছেলে ৭ বছর হয়েছে। কিন্তু সুন্দর সংসার চলাকালে পেকুয়া রাজাখালী পালাকাটা এলাকার মৃত আবুল কাসেমের পুত্র ২ সন্তানের জনক ওমান প্রবাসী আবু বক্কর ছিদ্দিকের সাথে বিগত ৪ বছর ধরে পরকিয়া প্রেমে আসক্ত হয় তার স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী খতিজার। তাতে ইন্ধন যোগায় তার (আশেক) স্ত্রীর বোন হোসনে আরা। কিন্তু পরকিয়ায় কোন সম্মতি ছিলনা স্ত্রীর পিতৃালয়ের পিতা-মাতাসহ অন্যান্য সদস্যদের। এরপরও গত ১ বছর পূর্বে স্ত্রীর বোন হোসনে আরাকে ব্যবহার করে টাকা ধার নেওয়ার কথা বলে সুকৌশলে হাতিয়ে নেয় ৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা। সর্বশেষ ৮জানুয়ারী’১৯ স্ত্রীর বোন ( শালিকা) এর শ্বাশুর বাড়ি সাতকানিয়া উপজেলার কেরানীহাট কলঘর এলাকায় স্ত্রী খতিজাকে টাকা ফেরৎ দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে স্ত্রীকে পরকিয়া প্রেমিকের হাতে তুলে দেয়। হতভাগা স্বামী মো: আশেক জানান, বর্তমানে আমার মাশুম ৩ সন্তানকে ফেলে অপর বিবাহিত ২ সন্তানের জনকের সাথে পালিয়ে যাওয়ায় সন্তানদের ভবিষ্যত নিয়ে খুবই চিন্তায় রয়েছেন। তিনি স্ত্রীকে উদ্ধারে আদালতের কাছে এই মামলাটি করেন বলে জানান। এদিকে বিজ্ঞ আদালতে উল্লেখিত ভিকটিমকে ফৌজদারী কার্য বিধির ১০০ধারা মতে আদালতে হাজির হওয়ার এবং অভিযুক্ত হোসনে আরার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ বিচারক অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো: মাসুদুর রহমান মোল্লা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.