ভূয়া অনলাইনের বিরুদ্ধে শিঘ্রই ব্যবস্থা- চট্টগ্রামে তথ্য মন্ত্রী

চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ

তথ্যমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে এখন অনেক অনলাইন। কিন্তু কিছু অনলাইনের দায়বদ্ধতা নেই। সম্প্রচার নীতিমালা পাস হলে অনলাইনগুলো নিবন্ধন করা হবে। ইতিমধ্যে অনেক অনলাইনের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

রোববার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে বঙ্গবন্ধু হলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী আরো বলেন, আমি প্রতিদিন একবার হলেও অনলাইনে ঢুকি এবং পড়ি। আমি অনলাইনে আপডেট জানার পরও সকালে পত্রিকা পড়ি। পত্রিকার পড়ার অভ্যাস ছোটকাল থেকে। এক প্রসেঙ্গ তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে তথ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব দেবেন কখনও ভাবিনি। কলেজ জীবনে আমি অনেক মাইকিং করেছি। দলের পক্ষে অনেক প্রেস রিলিজ লিখেছি। প্রধানমন্ত্রী দলের ও রাষ্ট্রের মাইক আমার হাতে ধরিয়ে দিয়েছেন। ছয় বছর দলের পক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে ওঠাবসা আমার।

তিনি বলেন, দায়িত্ব নেওয়ার শুরু থেকে সাংবাদিকদের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধান করার চেষ্টা করছি। আমি স্বÑপ্রণোদিত হয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবে গেছি। রিপোর্টাস ইউনিটিতে গেছি। আজ নিজের শহরে সাংবাদিকদের মিলনমেলায় আসতে পেরেছি। নির্বাচনের পর নতুন সরকারের মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে তথ্য মন্ত্রণালয় প্রস্তাব উত্থাপন করেছে।শনিবার সচিবালয় খোলা রেখে মন্ত্রিসভা কমিটির সভা করা হয়েছে। সংবাদপত্র মালিকদের দুইটি সংগঠন। সাংবাদিকদের সংগঠন আছে। সবার সঙ্গে আলাপ আলোচনার মধ্য দিয়ে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নবম ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন করা হবে। মূলত পত্রিকার জন্য ওয়েজ বোর্ড ছিল। টেলিভিশনের পাশাপাশি দেশে অনেক এফএম রেডিও আছে। দুই-একটির শ্রোতার সংখ্যা অনেক টেলিভিশনের দর্শকের চেয়ে বেশি। তাদেরও সম্প্রচার নীতিমালার আওতায় আনা হবে বলেন তথ্যমন্ত্রী

দেশ বহুদূর এগিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নিরলস পরিশ্রম কাজ করে যাচ্ছে। আজ দেশের মানুষ সফল ভোগ করছেন। তিনি বলেন, ক্ষুধাকে জয় করেছি আমরা। দরিদ্রতা ২১ শতাংশে নেমে এসেছে।

সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রতিটি মানুষ গণমাধ্যমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। একটি শিশু যে কাটুুন দেখে সেটিও গণমাধ্যম। সত্য সংবাদ মন্ত্রীর বিরুদ্ধে হলেও পরিবেশিত হবে। দেশের বড় কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হলেও হবে। তবে বীভৎস দৃশ্য টেলিভিশনে পরিবেশিত হলে সমাজে কী প্রভাব ফেলবে সেটিও বিবেচনায় নিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.