সিংহ প্রতীক পেলেন হিরো আলম, প্রচারণায় নামছেন বুধবার

আগামীকাল বুধবার থেকে সিংহ প্রতীক নিয়ে প্রচারণা শুরু করবেন তিনি। হিরো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পাওয়ায় তার সমর্থকরা মঙ্গলবারও কাহালুর মুরুইলসহ বিভিন্ন এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছেন।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হাইকোর্টে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আলোচিত আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম সিংহ প্রতীক নিয়ে ভোটের লড়াইয়ে নামছেন।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে হিরো আলম বলেন, সকালে ঢাকার হাইকোর্টের মাজার জিয়ারত করেছি। বুধবার বগুড়ায় ফিরে প্রথমে রিটার্নিং অফিসারের কাছে পছন্দের সিংহ প্রতীক নেব। এরপর নন্দীগ্রাম উপজেলা ও পরে কাহালু উপজেলায় মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করব।

তিনি জানান, তাকে নিয়ে এখনও ষড়যন্ত্র চলছে। মিথ্যা অজুহাতে রিটার্নিং অফিসার ও নির্বাচন কমিশন তার প্রার্থিতা বাতিল করেছিল। তিনি হাইকোর্টে গিয়ে সুবিচার পেয়েছেন। তাকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ দেয়ায় বিচারপতি, মিডিয়াকর্মী ও সমর্থকদের কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

হিরো আলম বলেন, ঢাকাতে অবস্থান করায় আমার সমর্থকরা সবসময় ফোন করছেন। নন্দীগ্রাম উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি কামালপাশাসহ বিভিন্ন এলাকার সমর্থকরা গত দুদিন ধরে মিষ্টি বিতরণ করছেন। আমি প্রার্থী হওয়ায় তরুণ সমাজের মাঝে সাড়া জেগেছে। আমার বিশ্বাস নির্বাচনে ভালো কিছু করতে পারব।

নন্দীগ্রাম উপজেলার বাদলাসন গ্রামের আবদুল হান্নান, কাথম গ্রামের আরিফ হোসেন, নন্দীগ্রাম সদরের রাব্বি হোসেন জানান, হিরো আলম প্রার্থী হওয়ায় জনগণের মাঝে ব্যাপক কৌতূহলের সৃষ্টি হয়েছে।

হোটেল-রেস্তরাঁয় তাকে নিয়ে আলোচনা চলছে। এ আসনে মূলত বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীর মাঝে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

তারা আরও বলেন, এ আসনে মূলত বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থীর মাঝে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। কাহালু উপজেলার তানসেন আলম, মোসাদ্দেক আলী, বাজার এলাকায় সুশান্ত কুমার প্রমুখ জানান, হিরো আলম প্রার্থী হওয়ায় অনেকে তাকে নিয়ে মজা করছেন।

এলাকায় এলে তার সঙ্গে সেলফি তোলেন। এছাড়া ইউটিউবে হিরো আলমের ছবি দেখার হিড়িক পড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.