চকরিয়া-পেকুয়ায় গণসংযোগকালে হাজী ইলিয়াছ এমপি মহাজোট সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই

চকরিয়া অফিস:
কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির কক্সবাজার জেলা সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইলিয়াছ চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে আসন্ন ৩০ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গতকাল ২২ নভেম্বর পর্যায়ে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণাসহ গংসংযোগ করে আসছেন।
এসময় আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপি স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে ও জনগনের মাঝে প্রতিক্রিয়ায় বলেন, বিগত ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী অনুষ্টিত ১০ম জাতীয় নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে বিনাপ্রতিদ্বন্ধীতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এর পর থেকে দুই উপজেলায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। যা স্বাধীনতার পর থেকে কোন সরকারের আমলে হয়নি। বিগত ৫বছরে দু’উপজেলার ২৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদরাসা, মন্দির, গির্জা, সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্টান, অসহায় গরীব দুঃস্থ পরিবার ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে সৌর সোলার স্থাপন, ছোট বড় হাট-বাজার ও রাস্তায় সড়ক বাতি স্থাপন, অসংখ্য ব্রীজ-কালভার্ট, কাচা পাকা রাস্তা নির্মান, খাল খনন, বেড়ী বাঁধ নির্মান, অসংখ্য প্রাতিষ্টানিক ভবন কাম সাইক্লোন সেল্টার নির্মান, ঢেউটিন বিতরণ, নগদ অর্থ সহায়তা ও বহুমূখী উন্নয়ন করা হয়েছে।
হাজী ইলিয়াছ এমপি বলেন, বেসরকারী স্কুল-কলেজ সরকারী করণ, চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০শয্যা থেকে ১০০ শয্যায় উন্নতি করণ, পেকুায়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩০ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতসহ পৃথক দুটি বভন নির্মান কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়া জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জোটগত ভাবে বিজয় নিশ্চিতে মহাজোটের প্রার্থীর পক্ষে তিনি ব্যাপক ভূমিকা রেখেছেন। এমনকি বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চকরিয়া উপজেলার ডুলহাজারা ইউনিয়নে লঙ্গল প্রতিতে চেয়ারম্যান প্রার্থী হাজী নুরুল আমিনকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন। এছাড়াও চকরিয়া-পেকুয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে লঙ্গল প্রতীকে সমর্থিত প্রার্থীর অবস্থান ছিল চোখে পড়ার মতো। হাজী ইলিয়াছ বলেন, বিগত কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচনে তার একান্ত প্রচেষ্টায় চকরিয়া-পেকুয়ায় জাতীয় পার্টি থেকে কক্সবাজার জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আসমা উল হোসনা ও চকরিয়া পৌরসভা জাতীয় মহিলা পার্টির সভাপতি রেহেনা খানম রাহু জেলা পরিষদের মহিলা সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমানে আসমাউল হুসনা জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
জাতীয় পার্টি চকরিয়া উপজেলা আহবায়ক আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, চকরিয়া পৌরসভা আহবায়ক মো: আবু ছাদেক, পেকুয়া উপজেলা সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক দিদারুল ইসলাম ও মাতামুহুরী থানা শাখা সভাপতি নুরুল হোছাইন এমইউপি বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে জাতীয় পার্টি সমর্থন ও নেতা-কর্মী শূন্য এলাকা ছিল চকরিয়া-পেকুয়ার এই সংসদীয় আসনটি। পল্লীবন্ধু এইচএম এরশাদের আদর্শের কিছু সংখ্যক সৈনিক হিসেবে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকলেও সাংগঠনিক ভাবে ছিল দূর্বল। বিগত দশ বছর পূর্ব থেকে হাজ্বী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপি কক্সবাজার জেলা জাতীয় পার্টির দায়িত্বে আসার পর থেকে একটি অবস্থান তৈরী করেন। তৃণমুল পর্যায়ে শুরু করে দেন নানাবিধ সাংগঠনিক কার্যক্রম। এরই ধারাবাহিকতায় হাজ্বী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপির নেতৃত্বে চকরিয়া-পেকুয়ায় পার্টির অবস্থান অত্যন্ত সু-সংগঠিত। বর্তমান জরিপে রাজনৈতিক ও সাংগঠনিকভাবে জাতীয় পার্টি অনেক এগিয়ে। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চকরিয়া-পেকুয়া আসনটি পুন:উদ্ধারে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছেন জাপা নেতৃবৃন্দরা। তাই হাজ্বী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপি’র মনোনয়ন ঠেকাতে উঠেপড়ে লেগেছে মহাজোটের একাংশ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.