চকরিয়ায় মহাসড়কের উপর পিকআপ টার্মিনাল পৌর কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে অফিস পায়নি ১ বছরেও

আবদুল মজদি:
চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়া পৌর সদরে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে পিকআপ টার্মিনাল। ফলে মহাসড়ক দিয়ে সাধারণ পথচারী পারাপার এবং মহাসড়কের পূর্ব পাশ্ব লাগোয়া সড়কে দিন-রাত পিকআপ-মিনিট্রাক দাঁড় করিয়ে রেখে পিকআপ টার্মিনাল হিসেবে তৈরী রাখায় দূর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। এসব থেকে পরিত্রাণে যেমনিভাবে সাধারণ যাত্রীরা চেয়েছেন, আবার তেমনিভাবে পিকআপ-মিনিট্রাক গাড়ী চালকরাও চেয়েছেন উপযুক্ত সমাধান।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পথচারীরা এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, মহাসড়কের পশ্চিম পার্শ্বে রয়েছে মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, কোরক বিদ্যাপীঠ, সরকারী হাইস্কুল, গ্রামার স্কুলসহ সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাকারা, মানিকপুর, সুরাজপুর, হাজিয়ান, লক্ষ্যারচর, কৈয়ারবিল, হারবাং, বরইতলীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে শিক্ষার্থীরা পিকআপ মিনিট্রাক রাখার স্থান দিয়ে রাস্তা পারাপার করেন। কিন্তু সড়কের উপর পিকআপ গাড়ী রাখার কারণে সহজভাবে স্কুল-কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীরা যাতায়াত করতে পারেননা। অপরদিকে মহাসড়কের বক্স রোডের মাথায় এসব পিকআপ মিনিট্রাক রেখে এক প্রকার পিকআপ মিনিট্রাক টার্মিনালে রূপ নেওয়ায় রাস্তার গুরুত্বপূর্ণ ওই মোড় দিয়ে চলাচলরত সব ধরণের গাড়ী স্বাভাবিকভাবে চলাচল করা সম্ভব হচ্ছেনা।
জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা পিকআপ মিনিট্রাক চালক শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা মো: আবু ছিদ্দিক জানিয়েছেন, তাদের পিকআপ মিনিট্রাট গাড়ী গুলো মহাসড়কের ওই স্থান থেকে স্থান্তরিত করে মহাসড়ক লাগোয়া জমজম হাসপাতালের সামনে করে দিয়েছিল চকরিয়া পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী পৌরসভার পক্ষ থেকে ওই স্থানে পিকআপ মিনিট্রাকের জন্য একটি অফিসও করে দেওয়া কথা ছিল। কিন্তু দীর্ঘ ১ বছর সময় অতিবাহিত হয়েছে তারা এখনো অফিসটি পাননি। যার কারণে বাধ্য হয়েই পৌর সদরের মহাসড়কের ওই স্থানে তাদের গাড়ী গুলো রাখতে হচ্ছে। তাদের অফিস যখনই তৈরী করে দেবেন তখনই তারা সব গাড়ী নিয়ে জমজম হাসপাতালে সামনে স্থাপিত অফিসে চলে যাবেন বলে জানান।এজন্য তারা উপজেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরুদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান বলেন, ভ্রাম্যমান অভিযান পরিচালনাকালে মহাসড়কের উপর এসব ট্রাক,মিনিট্রাক,পিকআপ থাকলে আদালতের নিয়ম অনুযায়ী জমিরানা আদায়সহ যথাযথ আইন প্রয়োগ করবেন। তিনি পৌর কর্তৃপক্ষকে স্থান্তরিত যায়গায় যথা সম্ভব অফিস গৃহটি তৈরী করে দেওয়ার আহবান জানান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.