স্ক্রিনশট বানিয়ে আমার জনপ্রিয়তায় ভাটা ফেলতে পারবিনা -ইসতিয়াক আহমদ জয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস ভাইরাল

স্ক্রিনশট বানিয়ে আমার জনপ্রিয়তায় ভাটা ফেলতে পারবিনা -ইসতিয়াক আহমদ জয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস ভাইরাল 

এ,কে,এম রিদওয়ানুল করিম ঃ

অবশেষে ফেসবুকের বিভিন্ন অপ্রপ্রচার মূলক স্টাটাস এর বিষয়ে মুখ খোললেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইসতিয়াক আহমদ জয়। তিনি তাঁর ফেসবুক আইডি থেকে দেয়া একটি স্ট্যাটাস পাঠকের জন্য হুবহু তুলে ধরা হল।

আবু ইউসুফ জয়কে চকরিয়া পৌরসভার আহবায়ক করেছিলাম আমি।
এরপর পরই স্থানীয় রাজনীতির নোংরামির শিকার হয়েছিল সে। তাকে পেটাতে পেটাতে উলঙ্গ করে ছবি তুলে সেই ছবি ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিলো।এটা নিয়ে মামলাও করা হয়েছিলো ঐ নর্দমার কীটগুলোর বিরুদ্ধে।

সেই মামলায় যারা অভিযুক্ত,তারা এখন আবু ইউসুফ জয়ের মৃতুর ২৪ ঘন্টা না পেরুতেই নোংরা রাজনিতি শুরু করে দিয়েছে তারা আবু ইউসুফ জয়ের নামে ফেইক স্ক্রিনশট বানিয়ে আমাকে মানুষিক ভাবে দুর্বল করার চেষ্টা করছে।

আবু ইউসুফ আমার কাছে কি ছিল,আমি তার জন্য কি করছি,সে আমাকে কতটুকু ভালবাসতো,শ্রদ্ধা করতো,আমি কি পরিমান আবু ইউসুফকে স্নেহ করতাম এই সব পুরো দুনিয়া জানেরে ছোট লোকের বাচ্ছারা ।

আমাকে ধমাতে নতুন কোন ফর্মুলা বের কর !
তবে হে যারা এইসব করে আমাকে যন্ত্রনা দিচ্ছিস, তোরা সব অপেক্ষায় থাক !!. কাউন্টডাউন শুরু কর এখন থেকেই …!!

আমি একজন একজন করে তোদের ধরবো৷
আরো বেশি বেশি স্ক্রিনশট বানাতে থাক, স্ক্রিনশট বানিয়ে আমার জনপ্রিয়তায় ভাটা ফেলতে পারবিনা।জনপ্রিয়তা আল্লাহ প্রদ্ধত্ত,তিনি নিজেই এইসব দেখভাল করেন।কোন কিছুতেই কোন লাভ হবে না।স্ক্রিনশট দিয়ে ভালবাসার সম্পর্ক মিথ্যা প্রমাণ করা যায় না।

সবকিছুর পর ওপারে ভাল থাকুক আমার আবু ইউসুফ জয়।তোদের উপর খোদার রহমত বর্ষিত হোক…

© Isthiak Ahmed Joy
সভাপতি
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
কক্সবাজার জেলা।
আজ ২৯ অক্টোবর চকরিয়ার সাংবাদিক নাজমূল  সাঈদ সোহেল এর ফেসবুক আইডি থেকে ছাত্রলীগ নেতা প্রয়াত আবু ইউসুফ জয় থেকে পদ পাইয়ে দেয়ার জন্য কোন এক ছাত্রলীগ নেতা ২ লাখ টাকা নিয়েছে মর্মে স্ট্যাটাস দেয়া হয়। স্ট্যাটাসে তিনটি স্ক্রিন শট ও দেয়া হয়। স্ক্রিন্ট শটগুলোতে আবু ইউসুফ জয় কার সাথে যেন মেসেন্জারে আলাপ করছে যাতে ফুটে উঠেছে পদ পাওয়ার জন্য সে কোন এক নেতাকে দুই লাখ টাকা দিতে হয়েছে। কার কাছে টাকা দেয়া হয়েছে সেটি লিখা ছিল না তাতে। সাংবাদিক নাজমুল সাইদের আইডি থেকে কপি করে পরক্ষণে বিভিন্ন জন এটাকে নিজ নিজ আইডি থেকে শেয়ার করতে থাকে। স্ট্যাটাসে প্রথমে নাম না থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে নামসহ স্ক্রিন্ট শট ভাইরাল হতে থাকে। (স্কিন্টশট সংযুক্ত) ভাইরালের গতি এতই দ্রুতগতি ছিল যা সারা কক্সবাজারে আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়। বিষয়টি নজরে আসে জেলা ছাত্রলীগের । অবশেষে স্ক্রিন্ট শটের অপ্রপ্রচারের জবাব দিয়ে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইসতিয়াক আহমদ জয় তাঁর বক্তব্য দিয়ে বিষয়টি স্পস্ট করেন। তিনি বলেন ফেইক স্ক্রিন্ট শট বানিয়ে আমার জনপ্রিয়তায় ভাটা ফেলতে পারবি না। প্রয়াত আবু ইউসুফকে জড়িয়ে ইসতিয়াক আহমদ জয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাসটি মূহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হতে থাকে। এদিয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাঝে বিষয়টি নিয়ে নানা জল্পনা কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। দেখা দিয়েছি মিশ্র প্রতিক্রিয়া। সচেতন মহলের দাবি এ ঘটনায় অপরাধি যেহোক তাকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করা হোক। এটা ছাত্রলীগের জন্য মানহানিকর ব্যাপার। তারা আরো বলেন কোন ছাত্রলীগ নেতা ইউছুপের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে তাকে তদন্ত পূর্বক আইনের আওতায় আনা হোক আর ফেইক স্ক্রিন্ট শট বানিয়ে অপ্রপ্রচার করলে জড়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থারো দাবি জানান তারা। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.