২টি বন্দুকসহ ৮ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার কুতুবদিয়ায় তিন জলদস্যু আটক


—————————–
লিটনকুতুবী,
=========
সাগরে ডাকাতি করে জলদস্যু দলের সদস্য কুতুবদিয়া উপকূলে ফিরে এসে গত বৃহস্পতিবার রাত আডাইটার সময় কৈয়ারবিল চেয়ারম্যান রোডের মাথায় সাগর পাড়ে অবস্থান করার খবর পেয়ে পুলিশের অপারেশন অফিসার এসআই জয়নাল আবেদীন,এএসআই ফকরুল,এএসআই পদু বডুয়াসহ পুলিশ পোর্স নিয়ে ঘেরাও করে নাছির (২৬) নামক ডাকাতকে আটক করে। ঘটনাস্থল থেকে তার নিকট ৪ রাউন্ড তাঁজা কার্তুজ ও একটি একনলা বন্দুক উদ্ধার করে পুলিশ। সে কৈয়ারবিল ইউনিয়নের মিয়াজির পাড়ার আবদুর রশিদের ছেলে। তার স্বীকারোক্তি মতে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের ফতেহ আলী সিকদার পাড়ার কালুয়ার ডেইল এলাকার শামসুল আলমের ছেলে মকছুদ আলম (৩৬) একই এলাকার আবুল কাসেমের ছেলে মোঃ সেলিম (২৫) কে আটক করে। তাদের তল্লাশি করে একটি বন্দুক ও ৪ রাউন্ড তাঁজা কার্তুজ উদ্ধার করতে সক্ষম হয় বলে পুলিশ সাংবাদিকদের জানান। পুলিশ সূত্রে প্রকাশ, আটককৃতরা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য। পেকুয়া,বাশঁখালী,মহেশখালী,কুতুবদিয়া উপকূলের ১৮/২০জন অস্ত্রধারী ডাকাত একত্রিত হয়ে ট্রলার নিয়ে বিগত ৪দিন পূর্বে থেকে সাগরে নির্বিচারে ফিশিং ট্রলার ডাকাতি হওয়ার খবর উপকূলে আসে। এ খবরের ভিত্তিতে পুলিশ সোচ্ছার ছিল। ঐ ডাকাত দলের সদস্যরা কুতুবদিয়া উপকূলে আসার খবর পেলে পুলিশ হানা দিয়ে তাদেরকে আটক করে বলে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিদারুল ফেরদাউস নিশ্চিত করেন। তিনি আরো জানান, গত বছর ১২ সেপ্টেম্বর রাতে ১৯ অস্ত্র ও ৬২১টি কার্তুজ নিয়ে কৈয়ারবিলের মনোয়ারুল ইসলাম মুকুল কক্সবাজার জেলার র‌্যাব-৭ এর হাতে আটক হয়। আটককৃত নাছির ডাকাত মুকুল বাহিনীর সদস্য বলে পুলিশের নিকট নিজে স্বীকার করে। ঐ সময় থেকে সে পলাতক ছিল। আটকতৃতদের বিরুদ্ধে কুতুবদিয়া থানায় অস্ত্র ও ডাকাতি মামলা রুজু হয়েছে বলে অপারেশন অফিসার জয়নাল আবেদীন নিশ্চিত করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.