গর্ত ও খানাখন্দকে বেহাল শহরের সড়ক-উপসড়ক


শাহেদুল ইসলাম মনির ॥

বার্মিজ স্কুল সড়কের কার্পেটিং উঠে খানাখন্দকে ভরে গেছে। রাস্তায় তৈরি হয়েছে ছোট বড় শত গর্ত। কোথাও কোথাও কংক্রিটের চিহ্নও নেই। মোদ্দাকথা র্দীঘদিন সড়কটি যানবাহনের চলাচল তো দূরের কথা চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কিন্তু তারপরও এই সড়কে প্রতিদিন চলাচল করে চাল ভর্তি ট্রাক, মাল ভর্তি কাভার্ভ ভ্যান ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ভর্তি ভারী যানবাহন। শুধু বার্মিজ স্কুল সড়ক নয়, দীর্ঘদিন ধরে মেরামত কিংবা সংস্কার না হওয়ায় এবং ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে কক্সবাজার পৌরসভার বেশীরভাগ সড়ক, উপসড়ক, অলিগলি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। ফলে প্রতিদিন ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনা ও ভোগান্তি পোহাচ্ছে পৌরসভার লাখো জনতা।
সরেজমিনে পৌর এলাকা ঘুরে দেখা যায়, শহরের বেশীরভাগ অলিগলি ও সড়ক উপসড়কের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। খানা খন্দক, গর্তে ভরা বেশীর ভাগ সড়ক। এর মধ্যে সমিতি পাড়া,পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়া, পুরাতন ঝিনুক মার্কেটের সামনে, মৎস্য ও হ্যাচারী রোড়, গাড়ির মাঠ, বিমানবন্দর টু নুনিয়ারছড়া সড়ক, এন্ডারসন রোড, বড়বাজার, পেষকারপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ফুলবাগ সড়ক, কার্তিক বাবু রোড়,
চাউলবাজার এবং বার্মিজ সরকারি প্রথামিক বিদ্যালয় রোড, দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়া সড়ক, ম্যালেরিয়া অফিস রোড়, টেকপাড়া বড় পুকুর রোড়, প্রতিবন্দী সেবা ও সাহয্য কেন্দ্র রোড, বায়তুশ শরীফ রোড, গোলদিঘীর পাড়, সেন্ট্রাল সরকারি প্রথামিক বিদ্যালয় রোড, সদর হাসপাতাল রোড, কলাতলী ও লাইট হাউজ এলাকার অভ্যন্তরীন সড়কের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। ফলে ছোট বড় যানবাহন চলাচলে ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে। অনেক এলাকার রাস্তাঘাট পায়ে হেটে চলাচল করা দুস্কর হয়ে উঠেছে।
এ বিষয়ে সিএনজি চালক শফি আলম বলেন, সড়কগুলোর সর্বত্র গর্ত থাকার কারণে সড়কগুলো দিয়ে যাতায়াতে প্রায়ই সিএনজি নষ্ট হচ্ছে। এ ছাড়া সড়কগুলো এ দশার কারণে যাত্রীরা সড়কগুলো দিয়ে যাতায়াত করতে চান না। তারা আরও বলেন আমাদের আয়-রোজগার কমে যাচ্ছে। এলাকাবাসীকে একরকম বাধ্য হয়ে এ সড়কগুলো দিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করতে হচ্ছে।
এ বিষয়ে কক্সবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র রেজাউল করিম, বলেন, গত প্রায় দুই বছর ধরে বার্মিজ স্কুল রোড়ের অব্যস্থা অত্যন্ত নাজুক। এ বিষয়ে কক্সবাজার পৌরসভা ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আকতার কামাল বলেন, সড়কের নাজুক অবস্থার বিষয়টি নজরে রয়েছে। কক্সবাজার পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দিদারুল ইসলাম রুবেল বলেন, আমি নব নির্বাচিত কাউন্সিলর। এইতো সেদিন শপথ গ্রহন করেছি। রাস্তাগুলো আগে থেকেই খারাপ। তাই এগুলো ঠিক করতে একটু সময় লাগবে। তবে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান মুঠোফোন না ধরায় এ বিষয়ে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.