কক্সবাজার শহরে এলোপাতাড়ি বাস ভাঙচুর, হামলাকারী আটক

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই যুবক পুলিশকেও ছুরি নিয়ে ধাওয়া করে। পরে ৪ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুঁড়ে তাকে দমানো হয়। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে আটক করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।
ধৃত জাহিদ লালদীঘি পূর্বপাড়ের এম. রহমান সিটি সেন্টারের মালিক মৃত মুফিজুর রহমান কন্ট্রাক্টর এর ছেলে। সে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।
এদিকে, নাশকতামূলক এ ঘটনার পেছনে কোন রহস্য লোকায়িত আছে কিনা তা তদন্ত করার দাবী জানিয়েছে মালিকপক্ষ। ক্ষতিগ্রস্ত বাস সৌদিয়া পরিবহনের ইনচার্জ নিরুপম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ভাঙচুরকৃত একটি বিলাসবহুল যানবাহন।

তিনি বলেন, সকালে এক যুবক এসে হঠাৎ গাড়ি ভাঙচুর শুরু করে। এরপর অগ্নিসংযোগ করতে গেলে হাতেনাতে আটক করা হয়। ঘটনায় একজনই জড়িত। তবে, কেন এমন ঘটনা করা হলো? তা জানা যায়নি। আটক ব্যক্তি পুলিশি হেফাজতে রয়েছে। রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।
এব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন খন্দকারের বক্তব্য জানতে গণমাধ্যমকর্মীরা চেষ্টা করেছেন কিন্তু তিনি সংবাদকর্মীদের ফোন রিসিভ করতে ব্যার্থ হন।
উল্লেখ্য, ঘটনার আকস্মিকতায় হতভম্ব হয়ে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট ডাক দেয় ক্ষতিগ্রস্ত বাস মালিকরা। পরবর্তীতে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম সড়কে আহুত অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে । প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এস আলম পরিবহনের ইনচার্জ মোহাম্মদ আলম ।
তিনি জানান , প্রশাসনের সাথে বৈঠকে হামলাকারী যুবক জাহিদের বিরুদ্ধে মামলা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.