চকরিয়ায় জায়গা দখল নিতে ঘন্টাব্যাপী গুলি বর্ষণ,আটক ৪

সন্ত্রাসী শাহজাহান ধরা ছোয়ার বাইরে

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ার বরইতলী ইউনিয়ন লাগোয়া ফাইতং মহেশখাল্যা পাড়ায় বিরোধীয় জায়গা জবর-দখল নিতে ঘন্টাব্যাপী গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দুইজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকসহ চারজনকে আটক করেছে। এ সময় উদ্ধার করা হয়েছে দেশে তৈরি পরিত্যাক্ত একটি লম্বা বন্দুক। গতকাল বুধবার বেলা দুইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
আটককৃতরা হলেন বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের ফাইতং গ্রামের মো: ওমর ফারুক (৪৪)। তিনি ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক। অন্য তিনজন হলেন বরইতলী ইউনিয়নের ফাইতং মহেশখাইল্যা পাড়ার আবুল হোছনের ছেলে বাদশা মিয়া (৪৮), লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের উত্তর লক্ষ্যারচর গ্রামের ফজল করিমের ছেলে মো. মহসিন (২৬) ও পৌরসভার নামার চিরিঙ্গা এলাকার শামশুল আলমের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৩৩)।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ফাইতং আর হোল্ডিয়ের বিপুল পরিমাণ জায়গা জবর-দখলে নিতে সশস্ত্র দুই দল বুধবার বেলা দুইটার দিকে ওই জায়গায় হানা দেয়। একপক্ষের নেতৃত্ব দেয় মোরশেদ হত্যা মামলার আসামি শাহজাহান ও অপরপক্ষে ফাইতং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুকের নেতৃত্বে তার দল। এ সময় দুইপক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেয় এবং থেমে থেমে উভয়পক্ষে অন্তত ২০ রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়। এ সময় উভয়পক্ষের অন্তত ৫ জন আহত হয়। তন্মধ্যে দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বরইতলী ও ফাইতং এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী একাধিক মামলার পলাতক আসামী শাহজাহান ওরপে সন্ত্রাসী শাহজাহান বিপুল পরিমাণ অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে ওই এলাকায় জমি জবর দখল করতে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশ কর্তৃক উদ্ধারকৃত অস্ত্রটি পররিত্যাক্ত অবস্থায় ফেলে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আরো জানিয়েছেন, উদ্ধারকৃত অস্ত্রটি সন্ত্রাসী শাহজাহানের হলেও তার বাহিনীর অবশিষ্ট অস্ত্রের ভান্ডারের সন্ধান ও উদ্ধার তৎপরতা চালানো না হলে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি হবে। ইতিমধ্যে চকরিয়া ও লামা থানা পুলিশ সন্ত্রাসী শাহজাহানকে গ্রেফতারে হন্য হয়ে খোজছে। এদিকে সাইফুল ইসলামের পরিবার দাবী করেছেন, সে নিরপরাধ এবং বঙ্গবন্ধু ও জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শের একনিষ্ট কর্মী। তার মালিকানাধীন জমি দেখাশোনার জন্য ফাইতং মহেষখাইল্যা পাড়ায় যান। কিন্তু পুলিশ অতর্কিতভাবে ধাওয়া করে তাকে আটক করেছে এবং হারবাং পুলিশ ফাড়িতে নিয়ে গিয়ে বেধম মারধর করা হয়েছে। যা অত্যান্ত দু:খজন। তার পরিবার বিজ্ঞ আদালতসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
চকরিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ইয়াছির আরাফাত বলেন, ‘বিরোধীয় জায়গার দখল নিয়ে দুইপক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেওয়া এবং গুলি বিনিময়ের খবর পেয়ে পুলিশ ছুটে যায়। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক এবং একপক্ষের ব্যবহৃত দেশে তৈরি একটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়।’ তিনি জানান, উভয়পক্ষের গুলি বিনিময়ের সময় কয়েকজন আহত হয়েছে বলে শোনা গেলেও একজন ছাড়া অন্যদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি আঁচ করতে পেরে তারা জঙ্গলের ভেতর ঢুকে পড়ে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.