কোটা নিয়ে এখন প্রশ্নের দরকার কী?

 

কোটা সংস্কার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটা ছাত্রদের বিষয় নয়, এটা ছাত্রদের নয়। এটা সরকারের বিষয়। তারপরও যখন তারা কোটা চায় না, আমি দাবি মেনে নিয়েছি। ক্ষুব্ধ হওয়ার বিষয় না। সেটা নিয়ে এখন প্রশ্নের দরকার কী?

আজ বুধবার বিকেল চারটায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ মন্তব্য করেন। সম্প্রতি সৌদি আরব, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া সফরের উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা প্রতিটি ক্ষেত্রে কোটার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। হঠাৎ কথা নাই বার্তা নাই কোটা চাই না বলে আন্দোলন শুরু হলো। শুধু আন্দোলনই নয়, রাস্তাঘাটও বন্ধ করে দিল। হাসপাতালে রোগী যেতে পারছিল না।

তিনি বলেন, আগেও বলেছি- কোটা পূরণ না হলে মেধাবী থেকেই পূরণ হচ্ছিল। তাদের পাঁচ দফা কিন্তু আগেই পূরণ হচ্ছিল। ৭২ শতাংশ, কখনো কখনো ৭৭ শতাংশই মেধা থেকে নিয়োগ হচ্ছিল। যারা পরীক্ষা দিচ্ছে সবাই তো মেধাবী।

তিনি বলেন, তারপরও যখন এতো আন্দোলন, ঠিক আছে আমি মেনে নিয়েছি। এরা তো আমার নাতির বয়সী। ঠিক আছে মেনে নিলাম। সব কোটা বন্ধ। এখন তাহলে প্রশ্ন আসবে কেন? সুতরাং আমরা করে দিয়েছি। আর কোটার দরকার নাই।

শেখ হাসিনা বলেন, কোটা নিয়ে নানা কথাবার্তা বলা হয়েছে, ব্যঙ্গ করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান সহ্য করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.