দীর্ঘদিন যারা পাহাড়ে বসবাস করছে তারাই ভূমিপূত্র …পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি, ২৮ এপ্রিল’ ২০১৮ইং
———————————–
দীর্ঘদিন যারা পাহাড়ে বসবাস করছে, কাগজ না থাকলেও তারাই ভূমি পূত্র। নতুন করে কেউ নামে বেনামে কাগজ এনে আদিবাসীদের উচ্ছেদ করতে চাইলে তা শক্ত হাতে প্রতিহত করবে প্রশাসন। পার্বত্য এলাকায় কোন ভূমিদস্যুদের আশ্রয় দেয়া হবেনা। এলাকার উন্নয়নে কোন প্রতিশ্রুতি দিবনা, সরকারী যত সুযোগ সুবিধা রয়েছে পাহাড়ের উন্নয়নে কাজ করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাহাড়ের উন্নয়নে বিশেষ নজর রয়েছে। নির্বাচন আসলে যারা ভিন্ন কথাবার্তা বলে সাধারণ ভোটারদের ভুল পথে নিয়ে যায় তাদের থেকে সতর্ক থাকতে হবে। দেশের চলমান উন্নয়নকে ধারাবাহিক রাখতে নৌকা ছাড়া বিকল্প নাই। যোগাযোগ, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্য সেবা, শিক্ষা বিস্তার ও খাদ্যে আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ পাহাড়ের জনগণ। শনিবার (২৮ এপ্রিল) বান্দরবানের লামা উপজেলার সরই বাজারে এক বিশাল জনসভায় এইসব কথা বলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
ইউনিয়নের বিদ্যুৎ বিহীন পরিবার ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের মাঝে সৌর বিদ্যুৎ এবং দুস্থ কৃষকের মাঝে স্প্রে মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সরই ইউনিয়ন পরিষদ। ইউপি চেয়ারম্যান মো. ফরিদুল আলম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এম.পি। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বান্দরবান জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন, পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার, লামা উপজেলা আওয়ামীলীদের সভাপতি আলহাজ¦ মোহাম্মদ ইসমাইল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুর-এ জান্নাত রুমি, পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য মোস্তফা জামাল, ফাতেমা পারুল, লামা থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মার্মা, মিন্টু কুমার সেন, মো. জসিম উদ্দিন, বাথোয়াইচিং মার্মা সহ প্রমূখ। এছাড়া অনুষ্ঠানে কয়েক হাজার পাহাড়ি-বাঙ্গালী জনগণ অংশ নেয়।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে লামা উপজেলা আওয়ামীলীদের সভাপতি আলহাজ¦ মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, বান্দরবানের জনগণ বীর বাহাদুরকে পরপর ৫ বার নির্বাচিত করায় প্রধানমন্ত্রী খুশি হয়ে পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী পদটি আমাদের উপহার দিয়েছে। আগামীতে নৌকার জয়ের ধারা অব্যাহত থাকলে আমরা পূর্ণ মন্ত্রী পদ পাব বলে আশা করি। তিনি সবার কাছে নৌকার ভোট চান।
পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, পাহাড়ে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে পুলিশ বাহিনী। সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিষয়ে জিরো টলারেন্স দেখাতে পুলিশ বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
বান্দরবান জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন বলেন, যুগের পর যুগ যারা পাহাড়ে বসবাস করছে তারা এই জনপদের দাবিদার। নতুন করে কাউকে পাহাড়ে ভূমি দখলের সুযোগ দেয়া হবেনা। অবৈধ দখলদারদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
জনসভা শেষে প্রধান অতিথি বিদ্যুৎ বিহীন ৪২টি পরিবারের মাঝে সৌর বিদ্যুৎ ও ১০০ দুস্থ কৃষকের মাঝে স্প্রে মেশিন বিতরণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.