পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবির কুতুবদিয়ায়, পর্যটকদের জন্য কক্সবাজার থেকে কুতুবদিয়া দ্বীপে সী-ট্রাক সার্ভিস


লিটন কুতুবী ,
===========
অপূর্ব সুন্দর লীলাভূমি কক্সবাজারের কুতুবয়িা দ্বীপটিতে অনেক দিন পরে হলেও বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের নজর পড়েছে। পর্যটন সম্ভাবনাময় অপার সুন্দর্য্যে দ্বীপ কুতুবদিয়ায় ভ্রমন প্রিয়সী দর্শনার্থীদের জন্য দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখার বিষয় মাথায় নিয়ে পর্যটন কর্পোরেশন মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। এরমধ্যে পর্যটকদের বেড়ানোর দৌরাত্ব কক্সবাজার সী-বিচ থেকে কুতুবদিয়া দ্বীপে যাতায়াতের সুবিধার্থে পর্যটন কর্পোরেশনের পক্ষ হতে সী-ট্রাক ব্যবস্থা করা হচ্ছে। পর্যটকদের আবাসিক সুবিধার জন্য পর্যটন কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে মোটেল জোন গড়ে তোলা হবে বলে আশ্বস্ত করলেন পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবির । গত মঙ্গলবার রাতে কুতুবদিয়া অফিসার্স ক্লাবে ইউএনও সুজন চৌধূরীর সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় উপজেলা প্রশাসন ,জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যক্তি,সাংবাদিকদের উদ্যেশ্যে কর্পোরেশন চেয়ারম্যান এ কথাগুলো বলেন। গত এক সপ্তাহ জুড়ে কুতুবদিয়া দ্বীপে পর্যটন কর্পোরেশনের একটি প্রতিনিধি দল দ্বীপে মোটেল নির্মাণের উপযুক্ত স্থান পরিদর্শন শেষে পর্যটন কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের নিকট একটি রির্পোট দাখিল করেন। এ রির্পোটের উপর ভিত্তি করে আজ বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কুতুবদিয়া পরিদর্শন করেন। অতি সত্তর কুতুবদিয়া দ্বীপ পর্যটন নগরীতে গড়ে উঠছে বলে পর্যটন বান্ধব ও উন্নয়নমনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুজন চৌধুরী সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন। বুধবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত পর্যটন কর্পোরেশন চেয়ারম্যান তার প্রতিনিধিদল নিয়ে কুতুবদিয়া দ্বীপের ঐতিহাসিক বাতিঘর, দেশের সর্ববৃহৎ বায়ুবিদ্যুৎ পাইলট প্রকল্প, সৃষ্ট পাথরের দৃশ্য,কুতুব আউলিয়ার মাজার,কুতুব শরীফ দরবার ও নান্দিনক সমূদ্র সৈকতসহ উপজেলা সদরে ইউএনও’র সৌন্দর্য বর্ধন প্রকল্প সিটিজেন পার্ক, আলোকময় লাইটিং,শহীদ মিনার চত্বরে বাংলাদেশের ইতিহাস সমৃদ্ধ বটতলাসহ বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান ঘুরে দেখেন। ইউএনও সুজন চৌধুরী জানান, দ্বীপে ঘুরতে আসা পর্যটকদের আবাসন সুবিধা তৈরি করতে পর্যটন মোটেল স্থাপনের জন্য জায়গা নির্বাচন করেছে পর্যটন কর্পোরেশন। তিনি কুতুবদিয়া উপজেলায় ইউএনও হিসেবে যোগদান করার পর পর্যটনের অপার সম্ভাবনা চোখে পড়ে শুরু করে দেন আকর্ষনীয় উপজেলার সুবিধা জনক স্থানে নান্দনিক সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য সিটিজেন পার্ক। পর্যটন কর্পোরেশনে ইউএনও হিসেবে সাগরকন্য দ্বীপকে পর্যটনের আওতায় নেওয়ার জন্য বারবার পত্র যোগাযোগ করে সফল হয়েছেন বলে কামনা করেন। এজন্য তিনি পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবিরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.