চকরিয়ায় মাদক ও চুরি কাজে বাঁধা দেয়ায় ৩জনকে কুপিয়ে জখম

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ায় উপকূলীয় বদরখালীতে মাদক ও চুরির কাজে বাঁধা দেয়ায় দুর্বৃত্তের সন্ত্রাসী হামলায় একই পরিবারের ৩জনকে দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে জখম করে আহত করেছে।আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।সোমবার (২৩এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার বদরখালী ৩নম্বর বøকের মুহুরিজ্জোরা পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় আক্রান্ত পরিবার থানায় মামলার প্রস্তুতি নিয়েছে।
সূত্রে জানাগেছে,বদরখালী ইউনিয়নসস্থ ৩নম্বর বøকের মুহুরিজ্জোরা পাড়া এলাকায় বেশ কয়েক বছর যাবত চিহ্নিত কিছু উঠতি যুবক দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছে মরণ নেশা ইয়াবাসহ নানা ধরণের মাদক ব্যবসা।ওই মরণ নেশা ইয়াবার টাকা জোগাড় করতে এলাকার যুবকেরা নেমে পড়েছে চুরি মতো অপরাধের ঘটনায়।নিত্যদিন এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে ঘটে চলছে মোবাইলসহ নানা ধরণের সরঞ্জামাদী চুরি।মাদক বিক্রি ও চুরির ঘটনায় পুরো এলাকায় অতিষ্ট হয়ে উঠেছে সাধারণ জনগণ।সম্প্রতি সময়ে ওই এলাকায় মোবাইল চুরি করায় হাতে নাতে স্থানীয়রা পাগড়া করে ফেলে এক চোর ও মাদক ব্যবসায়ীকে।
স্থানীয় এলাকাবাসী জানান,মুহুরিজ্জোরা পাড়া এলাকায় প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে নুরুল ইসলামের পুত্র আবু জাফর টিপু মরণনেশা ইয়াবা বিক্রি করে আসছে।তার এ অনৈতিক কর্মকান্ডে বাঁধা দিতে গিয়ে স্থানীয় ভাবে বেশ কয়েকদফা ছোট-খাটো মারামারি ঘটনাও ঘটেছে।সর্বশেষ সোমাবার রাতে মাদক বিকিকিনি বন্ধ করতে ও চুরি হয়ে যাওয়া একটি মোবাইল নিয়ে ফিরিয়ে দিতে নিষেধ করায় তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে মাদক বিক্রেতা টিপুর নেতৃত্বে তার ভাই রুবেল, ইসলামসহ ১০/১২জন মাদকসেবী চিহ্নিত দুর্বৃত্তরা দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্র নিয়ে ওই এলাকার হেলাল উদ্দিনের পুত্র সোয়াইবুল ইসলাম(৩৪)কে অতর্কিত ভাবে হামলা চালিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে আহত করা হয়।ঘটনায় বাঁধা দিতে গেলে সোয়াইবের বড় ভাই জাহেদুল ইসলাম(৩৭) ও তার চাচাতো ভাই মো:আলমগীর(২৫)কে ধারালো অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে।স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আতদের উদ্ধার করে রাতে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
আহত সোয়াইবুল অভিযোগ করে বলেন,টিপুর নেতৃত্বে পুরো এলাকায় বিভিন্ন পয়েন্টে দীর্ঘ ৪/৫বছর ধরে ইয়াবা বিক্রি করে আসছে।তার নেতৃত্বে গড়ে তুলেছে একটি ইয়াবা সিন্ডিকেট ব্যবসায়ী।সমাজের যুবকেরা নেমে পড়েছে মরণ নেশা ইয়াবা সেবনে।এ মাদকের কারণে ওই সিন্ডিকেট দলটি অনেক দিন থেকেই বদরখালী তিন নম্বর বøক এলাকায় মাদক ব্যবসা, চুরিসহ নানা ধরণের অপরাধমূলক কাজ করে আসছে।এদের বিরুদ্ধে বদরখালী পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তাকেও তাদের বিভিন্ন অপরাধ ব্যাপারে অভিযোগ করা হয়েছিল।
এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো:বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর বলেন,এ ধরণের ঘটনার বিষয়ে এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।অভিযোগ পেলে ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে তিনি জানান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.