চকরিয়ায় নিরপরাধ শ্রমিক নেতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণীর অভিযোগ পরিবারের

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ায় আহমদ উল্লাহ নামে নিরাপরাধ এক শ্রমিক নেতাকে মাদক আইনে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রাণীসহ কতিপয় ষড়যন্ত্র কারীদের পরোচনায় তাকে বিনাদোষে গ্রেফতার করে জেল হাজতেও প্রেরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন ভূক্তভোগী পরিবার। এনিয়ে হয়রাণীর শিকার আহমদ উল্লাহ’র পরিবারের পক্ষ থেকে বিজ্ঞ আদালতসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চেয়ে গতকাল ২৪ এপ্রিল রাত ৯টায় স্থানীয় সাংবাদিকদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলনও করেছে।
শ্রমিক নেতা আহমদ উল্লাহ’র স্ত্রী সালমা বেগম অভিযোগ করেন, তার স্বামী নিরপরাধ। একজন সাধারণ শ্রমিক হিসেবে অত্যন্ত দু:খ কষ্টের মধ্যে স্বামীর আয়-উপার্জন দিয়ে সংসারের জীবিকা করে আসছেন। তার স্বামী চকরিয়া-লামা আলীকদম রোড শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি:নং বি-৭২৬) এর ২ বারের নির্বাচিত ১নং সদস্য (কার্ড নং ৪৭৫০)। ঘটনারদিন গত ২৩ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার দিকে পৌরসভার ভাঙ্গারমুখ ষ্টেশন এলাকায় তার স্বামী আহমদ উল্লাহ ওয়ার্কসপে একটি গাড়ীর যন্ত্রাংশ মেরামত করতে যান। ওই সময় স্থানীয় জৈনক ছখিনা বেগম নামে এক মাদক বিক্রেতার আস্তানায় অভিযান চালাতে গেলে পাশ্ববর্তী ওয়ার্কসপের দোকানে থাকা তার স্বামী (আহমদ উল্লাহ)কে কতিপয় ষড়যন্ত্রকারীদের পরোচনায় পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এমনকি আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে নিরপরাধ স্বামী শ্রমিক নেতাকে থানা থেকে ছেড়ে দেবে মনে করেছি। কিন্তু রহস্যজনক কারণে তাকে মাদকদ্রব্য আইনে দায়েরকৃত মামলা (নং ৫৮,জিআর ২১৭)এ ১নং আসামী করা হয়েছে এবং তার কাছ থেকে কোন ধরণের মাদকদ্রব্য হাতে-নাতে না পেলেও পুলিশ ১৮ বোতল চোলাইমদ পেয়েছে মর্মে মামলার এজাহারে উল্লেখ করেছেন। যা অত্যন্ত দু:খজনক। অথচ: তার কাছ থেকে এক বোতল চোলাইমদও পায়নি পুলিশ। সংবাদ সম্মেলনে আহমদ উল্লাহর স্ত্রী জানিয়েছেন, তার সংসারে বর্তমানে ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে। দরিদ্র ও নিরপরাধ পরিবার বিবেচনায় বিজ্ঞ আদালতের কাছে স্বামীর জামিন ও মুক্তি দাবী করেন। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন আহমদ উল্লাহর পিতা লিয়াকত আলী প্রকাশ টুক্কু মিয়া, ছোট ভাই মোহাম্মদুল করিমসহ পরিবারের সদস্যরা।##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.