চকরিয়ায় নতুন জুতার জন্য অভিমান, নবম শ্রেণির  শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ায় বাবার কাছে নতুন জুতার বায়না করে সঠিক সময়ে না পাওয়ায় অভিমানে আত্মহত্যা করেছে নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মাহতাব উদ্দিন খালেদ (১৬)। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে চকরিয়া পৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের কাহারিয়াঘোনাস্থ নিজ বাড়িতে ঘটেছে এ আত্মহত্যার ঘটনা। এরআগে পরিবার সদস্যরা মুর্মুষ অবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে উপজেলা সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু ততক্ষনে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন শিক্ষার্থী মাহতাব। শাররীক পরীক্ষা শেষে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। মাহতাব ওই এলাকার মনির উদ্দিন খালেদের ছেলে এবং স্থানীয় চকরিয়া কেন্দ্রীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীতে অধ্যায়নরত ছিলেন।
চকরিয়া সিটি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সালাহউদ্দিন খালেদ জানান, তার ছোটভাই মনির উদ্দিন খালেদের ছেলে মাহতাব। বিদ্যালয়ের সহপাঠি বন্ধুদের সাথে বেড়াতে যেতে বাবার কাছে কয়েকদিন আগে একজোড়া নতুন জুতার বায়না করে সে। কিন্তু সঠিক সময়ে তাকে জুতা কিনে না দেয়ায় অনেকটা অভিমান করে গতকাল সকালে বাড়িতে সিলিং ফ্যানের সাথে গলাঁয় ফাস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে মাহতাব।
প্রতিবেশি লোকজন জানায়, শিক্ষার্থী মাহতাবের বাবা মনির উদ্দিন খালেদ ও মা নিগার উম্মে এ্যানী চকরিয়া সদরে একটি বীমা কোম্পানিতে চাকরি করেন। প্রতিদিনের মতো গতকাল সকালে তাঁরা বাড়ি থেকে কর্মস্থলে চলে যান। ওইসময় বাড়িতে ছিলেন মাহতাব। অন্য ভাই-বোনেরা ছিলেন বিদ্যালয়ে।
পরিবার সদস্যরা জানান, বেলা ১১টার দিকে মনির উদ্দিন খালেদের ছোট মেয়ে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী সিলভী স্কুল থেকে বাড়িতে আসেন। ওইসময় বাড়ির দরজা ভেতর থেকে বন্ধ দেখে অপর ভাইকে খবর দেন সিলভী। পরে তারা অন্যপথ দিয়ে বাড়ির ভেতরে ঢুকে দরজার হুক খুলেন। ওইসময় বাড়ির একটি কক্ষে মাহতাবকে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলতে দেখে চিৎকার দেন।
পরিবার সদস্যরা জানান, ছোট ভাই-বোনদের চিৎকারে বাড়ির অপরাপর সদস্য ও প্রতিবেশি লোকজন ঘটনাস্থলে আসেন। এরপর বাড়িতে ঢুকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। ওইসময় হাসপাতালের কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।
চকরিয়া থানার ওসি মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে হাসপাতাল থেকে ওই শিক্ষার্থীর মরদেহ থানায় আনা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, অভিমানের কারনে সংক্ষুদ্ধ হয়ে ওই শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিনা ময়নাতদন্তে লাশটি দাপনের জন্য পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.