কক্সবাজার সদর ইউএনও’র উদ্যোগ, অসচ্ছল ৫০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য উপহার

কক্সবাজার সদরে অসচ্ছল ৫০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য উপহার

রিদওয়ান ঃ কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুরাইয়া আক্তার সুইটির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় করোনাভাইরাস মহামারির বিস্তার নিয়ন্ত্রণে চলমান লকডাউনে কক্সবাজার সদরে কর্মহীন হয়ে পড়া পর্যটনের সঙ্গে জড়িত বিচ বাইক, কিটকট ছাতা, জেট স্কি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা পরিবার ও দর্জিসহ অসচ্ছল ৫০০ পরিবারের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে খাদ্যসামগ্রী উপহার দিয়েছে সদর উপজেলা প্রশাসন।
বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেল ৩টায় কক্সবাজার বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়ামে সামাজিক দূরত্ব মেনে অসহায় ৫০০ পরিবারের মধ্যে এসব উপহারসামগ্রী বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।

উপহার সামগ্রী হিসেবে প্রত্যেক পরিবারকে ৫ কেজি করে চাল, মসুর ডাল ৫০০ গ্রাম, আধা লিটার তেল, সেমাই ১ প্যাকেট এবং ১ কেজি করে চিনি দেওয়া হয়। জেলা প্রশাসক বলেন, ‘সমাজের দরিদ্র মানুষের পাশাপাশি লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া ৫০০ পরিবারের হাতে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারের জন্য প্রায় ১০ কোটি টাকার উপহার দিয়েছেন। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর জন্য তাঁর এই উপহার।’

মামুনুর রশীদ বলেন, ‘আমরা হিসেবে করে দেখেছি প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বরাদ্দ কক্সবাজারের প্রায় ২ লাখ মানুষকে  সহযোগিতা করতে পারব।’

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা বলেন, পর্যায়ক্রমে অন্যান্য পেশার মানুষের হাতেও প্রধানমন্ত্রীর এ উপহার পৌঁছে দেওয়া হবে। আমরা চাই, এ পরিস্থিতিতে কেউ অনাহারে ও কষ্টে না থাকুক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ গরিবকে ভালোবেসে দুঃসময়ে মানুষকে এসব উপহার দেয়নি।

ইউএনও সুরাইয়া আক্তার সুইটি বলেন, যাচাই বাছাই করে প্রকৃত হত দরিদ্রদের তালিকা করে প্রাথমিক পর্যায়ে ৫০০ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে তালিকা করে সকল দরিদ্রের মাঝে এ উপহার প্রদান করার চেষ্টা অব্যাহত আছে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া আক্তার সুইটি, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.