চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে জমির পাকা ধান কর্তন নিয়ে দু’পক্ষে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্খা

প্রতিকি ফাইল ছবি

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালীতে জমির পাকা ধানা কর্তন নিয়ে দু’পক্ষে ক্ষোভ, উত্তেজনা ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্খা দেখা দিয়েছে। এনিয়ে দু’পক্ষই পরিষদ, থানা ও আদালতে পাল্টা-পাল্টি অভিযোগও দিয়েছেন। ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ফাসিয়াখালী গ্রামে ঘটছে এ ঘটনা। সর্বশেষ ৯নভেম্বর রাতেও একই আশঙ্খা প্রকাশ করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
অভিযোগে জানাগেছে, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ফাসিয়াখালী গ্রামে বনবিভাগের বিএস ২নং খতিয়ানভূক্ত ভিলিজারি জমিতে দীর্ঘ ৫০/৬০বছর ধরে বসবাস ও চাষাবাদ করে আসছেন ভিলিজার ও তাদের আত্বীয় স্বজনরা। কিন্তু বিগত ২০১৬সনে জমি ভোগদখল মালিক পক্ষের মোঃ শেখান্দরের পুত্র জহির আহমদ ও আবদুল কাদেরের পুত্র আবুল কালাম গংয়ের সাথে মৃত মোঃ হোছনের পুত্র আবু নছর গংয়ের মধ্যে বিএস খতিয়ান নং ২, দাগ নং ৪৫৬এর প্রায় ৪ একর চাষাবাদী ধান্য জমি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হলে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম আদালতে একটি মামলা দায়ের হয়। ওই মামলাটি পরিষদ থেকে মিচ মামলা করে বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালত কক্সবাজার আদালতে ট্রান্সফার মিচ মামলা নং ১২২/২০দায়ের করেন মৃত মোঃ হোছনের পুত্র আবু নছর গং। তিনি এরপর কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি এমআর মামলা নং ৬১২/২০দায়ের করেন। আদালতে দুইটি মামলা বিচারাধীন থাকা সত্ত্বেও নতুন করে থানায় মিথ্যা অভিযোগে একটি সাধারণ ডায়রীও করেন (নং ৩৩৯/২০)। তা তথ্য গোপন করে চকরিয়া থানার নন এফআইআর নং ১১৬/২০ প্রতিবেদন আদায় করে প্রতিপক্ষকে হয়রাণী ও চলমান পাকা ধান কেটে লুটের চেষ্টাও করছেন। ননএফআইআর-এ অভিযুক্ত করা হয়েছে জমি মালিক পক্ষের শেখান্দরের পুত্র জহির আহমদ, আবদুল কাদেরের পুত্র আবুল কালাম, মৃত মফজল আহমদের পুত্র ওসমান গনি, মোঃ আলীর পুত্র মোঃ হোছন, মোঃ পেঠানের পুত্র মোছাব্বের হোসেন, আলী আহমদের পুত্র মাহমুদুল করিম ও মোঃ কালুর পুত্র আক্কাছ আহমদকে। অভিযোগটি আগামী ১৭নভেম্বর’২০শুনানীর জন্য ধার্য্য থাকলেও সব মামলার বিচার কার্য উপেক্ষা করে বাদী আবু নাছর নিজেই ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে বিরোধীয় জমির পাকা ধান কেটে লুটের চেষ্টা করছে বলে ভূক্তভোগিরা অভিযোগ করেন। ফলে ধান কাটতে গেলে যেকোন মুহুর্তে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্খা রয়েছে বলে জানাগেছে। তারা আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এনিয়ে আবু নাছর গংয়ের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানান।
চকরিয়া থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, ঘটনার বিষয়ে দু’পক্ষ থেকেই অভিযোগ এসেছে। তাই শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রশাসন সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.