চকরিয়ায় থানা পুলিশের বিরুদ্ধে এক অসহায় পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চকরিয়া থানা পুলিশের বিরুদ্ধে আদালত থেকে জামিন পাওয়া এক ব্যক্তিকে পুনরায় অবৈধ অস্ত্র দিয়ে কারাগারে পাঠানোর অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী ইরান আক্তার। গতকাল বিকালে চকরিয়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত ভাবে এ অভিযোগ করা হয়েছে। উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের সওদাগরঘোনা চারাবটতলী এলাকার মৌলভী মোহাম্মদ হোসেনের পুত্র মোহাম্মদ ইউসুপ গত বছরের ৮ অক্টোবর বিজ্ঞ অতিরিক্ত দায়রা জর্জ আদালতে এসটি ৪৪/২০০৫ মামলায় স্বেচ্ছায় আত্ব সমর্পণ করলে বিজ্ঞ আদালত গ্রেফতারী পরোয়ানা মুলে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। দীর্ঘ ৭মাস ইউসুপ কারা ভোগের পর গত ৮ মার্চ কক্সবাজার যুগ্ন জেলা ও দায়রা জর্জ আদালত ২য় থেকে এসটি ২১৮/১১ মামলায় জামিন লাভ করে। এরপর উক্ত মামলাসহ অন্যন্য মামলার জামিন নামার কাগজ ও মামলা প্রত্যাহারের যাবতীয় কাগজপত্র গুলো জেল খানায় জমা দিয়ে ১১ মার্চ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় জেল থেকে বের হলে তার ভাই ইমাম শরাফ জেল গেট থেকে তাকে নিয়ে আসার জন্যে গেলে কালো মাইক্রোবাসে করে সাদা পোষাক এবং অস্ত্রধারী আইন শৃংখলা বাহিনীর লোকজন তাকে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবী করা হয়েছে ওই দিন সারারাত ইউসুপকে সবখানে খোজাখোজির পরও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরের দিন ১২ মার্চ তার পরিবার জানতে পারে ইউসুপকে চকরিয়া থানায় সাদা পোষাকের অস্ত্রধারীরা সোপর্দ করেছে।
গত ১৩ মার্চ ছাইরাখালীর কথিত একটি ঘটনায় ইউসুপের হাতে অবৈধ অস্ত্র দিয়ে চকরিয়া থানার মাধ্যমে আদালতে প্রেরণ করা হলে বিজ্ঞ আদালত তার জামিন না মনজুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। বর্তমানে ইউসুপ জেল হাজতে আটক রয়েছে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্রম মো: ইউসুপ ৭ মাস কারা ভোগের পর ফের মিথ্যা মামলায় অবৈধ অস্ত্র দিয়ে কারাগারে যাওয়ায় তার স্ত্রী ও ছেলে মেয়েরা অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর দিনাতিপাত করছে। ইউসের স্ত্রী ইরান আক্তার এসব মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই পেতে প্রশাসনের উর্ধতন কতৃপক্ষের সহায়তা কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.