মুজিববর্ষে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে কমিটি গঠন ও বিলুপ্তি-

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ সংগঠন যা গঠনতন্ত্র মোতাবেক পরিচালিত হয়। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র ৭ এর “ক” ধারা অনুযায়ী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির মেয়াদকাল এক বছর হয়। কিন্তু মাতামুহুরী সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মিজবাহ উদ্দিন বেলাল গঠনতন্ত্র কে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে অত্র ইউনিটের আওতাধীন ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ৫ মাস ১ দিন পর মেয়াদ উত্তীর্ণ উল্লেখ করে বিলুপ্তি ঘোষণা করে।
একিই সাথে বি.এম.চর ও পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নে গঠিত হওয়া কমিটির দুই সভাপতি গত এই জানুয়ারি মাসে র্যাবের কাছে আটক হওয়া মাদক ব্যবসায়ী রবিনের বিশ্বস্ত সহযোগী ও মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে জড়িত এবং মাদকাসক্ত বলে জানা যায়।
তাছাড়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র ২৩ এর খ ধারা অনুযায়ী এক ইউনিটে সভাপতি,সম্পাদক, আহ্বায়ক,যুগ্ন আহ্বায়ক এক ব্যাক্তি দুইবার হয়ে গেলে তার পরবর্তী আবার কোন পদে থাকার সুযোগ থাকে না! কিন্তু পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের গঠিত সভাপতি পূর্বে সাধারণ সম্পাদক ও আহ্বায়ক এর দায়িত্ব পালন করছিল।

এ ব্যাপারে ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র বিরোধী বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি এমরুল হাসান জিকু এর কাছে মতামত জানতে চাইলে উনি বলেন _ আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি করতে বিশ্বাসী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সংগঠন পরিচালনা হতে বিশ্বাসী এরই ধারাবাহিকতায় আমি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এবং উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি দায়িত্ব পালন করতেছি। দায়িত্ব পালনে ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীদের পাশে থেকেছি এবং তাদের যে কোন প্রয়োজনে ছাড়া দিয়েছি।তাই উপজেলা ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মীরা আমাকে মুজিব আদর্শে সৈনিক উল্লেখে অনেক বেশি ভালবাসে এবং পরবর্তী উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে চাই বলে গুঞ্জন সৃষ্টি হয়।
সর্বশেষ ১৪ ই জুলাই আমার জন্মদিনে উপজেলার প্রতিটি ইউনিটের নেতাকর্মীরা ব্যাপকভাবে সোস্যাল মিড়িয়ায় আমাকে উয়িশ করে আমার যে জনপ্রিয়তা দেখে তারা প্রতিহিংসায় আমার কমিটি গঠনতন্ত্র বিরোধী বিলুপ্তি করে।
এই রকম প্রতিহিংসা হলে সুস্থ ধারার রাজনীতি ও ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বঙ্গবন্ধুর আদর্শে রাজনীতি থেকে সাধারণ ছাত্রলীগ কর্মীরা অনেক দূর হারিয়ে যাবে।
আমি এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের বিপ্লবী সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ জয় ভাই ও সংগ্রামী সাধারণ সম্পাদক(ভারপ্রাপ্ত) মোর্শেদ হোসাইন তানিম ভাইয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

গঠনতন্ত্র বিরোধী বিলুপ্ত কমিটির ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান মোহাম্মদ তারেক এর মতামত জানতে চাইলে তিনি বলেন_
উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সম্পাদক প্রতিটি ইউনিটে কমিটি বানিজ্য করে এবং তারা কোন সংগঠনের স্বার্থে রাজনীতি করে না, শুধু নিজেদের আখের গোছায়।
আমি আমার কমিটি যে গঠনতন্ত্র বিরোধী বিলুপ্ত করেছেন এই ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি/সম্পাদক এর প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.