চকরিয়ার বদরখালী বাজারে বাবার জন্য ঔষধ আনতে গিয়ে হামলার শিকার এক ছাত্র

হামলাকারী সোহায়েত

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
চকরিয়ার বদরখালী বাজারে বাবার জন্য ঔষধ আনতে গিয়ে এক ছাত্র বখাটে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়েছে। গত ১৫ জুন বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ঘটেছে এ ঘটনা। এনিয়ে হামলার শিকার ছাত্র জিদান আল নাহিয়ান সুহার্ত (১৫) বাদী হয়ে ১৬ জুন’২০ইং থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সে বদরখালী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মাতারবাড়ি পাড়া গ্রামের বারেক আহমদের পুত্র ও বদরখালী কলোনীজেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে; এলাকার চিহ্নিত অপরাধী বদরখালী মগনামা পাড়া গ্রামের নুরুল আজিজের পুত্র সোহায়েত, চিহ্নিত সন্ত্রাসী বাজারপাড়ার সাহাব উদ্দিন বাহাদুরের পুত্র ওশান বাহাদুর, দাতিনাখালী পাড়ার নাজেম উদ্দিনের পুত্র নজরুল ইসলাম, মগনামা পাড়ার শফির পুত্র নিশান ও ঠুটিয়াখালী পাড়ার মোঃ রাকিবসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে।
অভিযোগে জানাগেছে, অভিযুক্তদের মধ্যে নুরুল হুদা হত্যা মামলার আসামী খুনিরাসহ বিভিন্ন অপরাধে চিহ্নিত লোকজন ও বখাটে রয়েছে। ঘটনারদিন স্কুল ছাত্র জিদান আল নাহিয়ান সুহার্ত তার অসুস্থ পিতার জন্য ঔষুধ ক্রয় করে আনতে বদরখালী বাজারে যান। অভিযুক্তরা তাকে একা পেয়ে বদরখালীস্থ ইউনিয়ন ব্যাংকের সামনে পথরোধ করে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে অতর্কিত অবস্থায় হামলা চালায়। হামলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে স্কুল ছাত্র গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়। পরে আত্বীয়স্বজনরা ও বাজারে আগত লোকজন এগিয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। বর্তমানে এই ঘটনায় কোন মামলা করলে হামলাকারীরা নতুন করে প্রাণনাশসহ ফের হামলার হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন স্কুল ছাত্র। ফলে অভিযিক্তদের কাছ রক্ষায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে এ অভিযোগটি করেন। ১নং অভিযুক্তের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা নং এসটি ১১৬১/১৮ এবং জিআর মামলা নং ২৫৫/১৬, ধারা ৩৬৪/৩০২/৩৪দঃবিঃ’তে পলাতক রয়েছে। হামলার শিকার ছাত্র জিদান আল নাহিয়ান সুহার্ত থানা প্রশাসনের কাছে জীবনের নিরাপত্তা ও ভবিষ্যত পড়ালেখার স্বার্থে নিরাপত্তা চেয়েছেন।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ হাবিবুর রহান বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারেনদেখা হচ্ছে। ঘটনা তদন্তে সত্য হয়ে থাকলে জরুরী ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নীচের ছবিতে আহত ছাত্রের ফাইল ছবি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.