চকরিয়ায় সিআইডি পুলিশের ভূয়া পরিচয়ে বাদীকে অপহরণের চেষ্টা সংবাদের একাংশের প্রতিবাদ

গত ১০ ও ১১ মার্চ’১৮ইং জাতীয়, আঞ্চলিক ও স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় “চকরিয়ায় সিআইডি পুলিশের ভূয়া পরিচয়ে মামলার বাদীকে অপহরণের চেষ্টা, দুইজন গ্রেফতার” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টি গোচর হয়েছে। প্রকাশিত উক্ত সংবাদ ও ঘটনার সাথে আমার পরিবারের বিন্দুমাত্র সম্পৃক্ততা নেই। কেবা কাহারা কি জন্য এ ঘটনা করেছে, নাকি আমাদেরকে পরিকল্পিতভাবে ফাসাতে এ ঘটনা করেছে তা আমাদের বোধগম্য নয়। ঘটনার বিবরণে উল্লেখ করে যে, ইতিপূর্বে গত ২৩/০২/২০১৮ইং ভোর সকালে আমাদের পরিবারের সবার অজান্তে আমার পুত্রবধু কুলসুমা জন্নাত রিমা (২১) তার শয়ন কক্ষের ভেতরে গলায় ফাস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। এ ঘটনায় আমার পরিবারসহ পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে পড়ে। এ ঘটনা আমরা পরিবারের সদস্যরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছিনা। এটি একটি অনাকাংখিত ঘটনা। আত্মহত্যার ঘটনার বিষয়ে চকরিয়া থানা পুলিশ সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে নিজে নিজেই আত্মহত্যা করেছে মর্মে চকরিয়া থানা পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি ইউডি (অপমৃত্যু) মামলা রুজু করেছে। কিন্তু ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে পরিকল্পিতভাবে আমার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও কাল্পনিত অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। যার আদৌ কোন সত্যতা নাই। একইভাবে বাপের বাড়িতে ঢুকে হত্যা মামলার বাদি নিহতের মা নুরুন্নাহার বুলুকে অপহরণের চেষ্ঠা করেছে মর্মে ঘটনা সাজিয়েছে। যে ঘটনার সাথেও আমাদের নূন্যতম সম্পর্ক নেই। আমরা পরিবারের সদস্যরা স্থানীয় লোকজন মারফত থানায় খবর নিয়ে জেনেছি, যারা সিআইডি পুলিশের সদস্য পরিচয় দিয়ে এ কাজ করেছে তারা একটি প্রতারক চক্র। পুলিশ তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পেরেছে, আটককৃত চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের মাইজঘোনার মৃত আবদু ছালামের ছেলে শহীদুল ইসলাম (২৬) ও একই ইউনিয়নের বাটাখালী গ্রামের মোঃ ইসহাকের ছেলে মোহাম্মদ রুবেল (২৮) ভূয়া সিআইডি পুলিশ সেজে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছে। ধৃতদের সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক নাই। তাদের মধ্যে ১জন বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামী হওয়ায় পুলিশ আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠিয়েছে এবং অপরজনের কোন মামলা না পেয়ে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে বলে শুনেছি। ওই ঘটনাও পুলিশ তদন্ত করেছে এবং ধৃতরাও স্বীকারোক্তি দিয়েছে যে, ঘটনার সাথে আমাদের কোন সম্পৃক্ততা নাই। যা থানা পুলিশের কাছে সরে গিয়ে খবর নিলে আসল তথ্য পাওয়া যাবে। তাই প্রকাশিত উক্ত সংবাদ নিয়ে বিজ্ঞ আদালত, থানা পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানাচ্ছি এবং সংবাদের আমাদের অংশের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে পুত্রবধুর জন্য বেহেস্ত কামনা করছি।
প্রতিবাদকারী- রেনু আক্তার, স্বামী মো: আবুল বশর
মাইজঘোনা উত্তর পাড়া, ৫নম্বর ওয়ার্ড, সাহারবিল ইউনিয়ন,চকরিয়া,কক্সবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.