চকরিয়ার চৌয়ারফাড়ি মাছবাজারে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে হামলা, আহত ৮

চকরিয়া প্রতিনিধি
চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল ইউনিয়নের চৌঁয়ারফাঁড়ি বাজার তথা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের মাছ মাপার যন্ত্রের (স্থানীয় ভাষায় পাল্লা) নিয়ন্ত্রণসহ পুরো বাজারের আধিপত্য নিতে হামলার ঘটনা ঘটেছে।
অভিযোগে জানাগেছে, চৌঁয়ারফাঁড়ি বাজারের মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের মাছ পরিমাপের স্টলের মালিক মো. জালাল উদ্দিনকে স্টল ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেয় হামলায় নেতৃত্ব দেয়া নবী হোছাইন। কিন্তু জালাল তার নির্দেশমতো স্টল ছেড়ে না দেওয়ায় গত ১৩ মে বুধবার বিকেলে সদলবলে কোরালখালী গ্রামের নিজ বাড়িতে গিয়ে জালালকে খুঁজতে থাকে এবং কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। তখন জালালকে না পেয়ে বাড়িতে ভাঙচুর এবং উপর্যুপরি ধারাল অস্ত্র দিয়ে বেশ কয়েকজনকে কোপাতে থাকে তারা। এতে জালালের স্ত্রী, অপর তিন নারীসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়। তাদেরকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। তন্মধ্যে এক নারীসহ দুজনকে মুমূর্ষু অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

আহতরা হলেন- চমেক হাসপাতালে রেফার করা মাশুক আহমদের ছেলে মো. রায়হান (২৮), আবুল কাশেমের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৩০), উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি থাকা বুলু মিয়ার ছেলে মো. গোলাল (৪০) ও আবুল কাশেম (৩২), স্ত্রী নূর বেগম (৭০), মো. জালালের স্ত্রী কুলছুমা বেগম (৩৫), আবু ছিদ্দিকের স্ত্রী হুমাইরা বেগম (৪৫) ও আবু বক্করের ছেলে মো. মুবিন (২৫)।

ভুক্তভোগী জালাল উদ্দিনসহ স্থানীয় লোকজন জানান, গত ১৩ মে বুধবার বিকেল ৫টার দিকে নবী হোছাইন তার ১৫-২০ জন সহযোগী নিয়ে একযোগে এই হামলা চালায় বাড়িতে। এ সময় তারা প্রথমে ৫-৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। পরে তাকে (জালাল) না পেয়ে ধারালো কিরিচ এবং লোহার রড দিয়ে এলোপাতাড়ি আক্রমণ চালায় পরিবার সদস্যদের ওপর। ভাঙচুর করা হয় পুরো বাড়িতে।

তবে নবী হোছাইন দাবি করেন, সে চৌঁয়ারফাঁড়ি বাজারের একজন বৈধ ইজারাদার। তিনি চলতি সনের জন্য উপজেলা প্রশাসন থেকে সর্বোচ্চ ডাককারী হিসেবে বাজারটি ইজারা পেয়েছেন।কিন্তু জালাল উদ্দিন একজন বড় চাঁদাবাজ। প্রতিনিয়ত তার চাঁদাবাজিতে বাজারের ব্যবসায়ীরা অতিষ্ঠ।

চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনায় যারাই জড়িত থাকুক লিখিত অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.