কক্স টিভিতে সংবাদ প্রকাশঃ চকরিয়ার সেই পরিবারে রাতেই খাবার পৌছে দিলেন কাউন্সিলর রেজাউল করিম

কক্স টিভিতে সংবাদ প্রকাশঃ চকরিয়ার সেই পরিবারে রাতেই খাবার পৌছে দিলেন কাউন্সিলর রেজাউল করিম

এ.কে.এম রিদওয়ানুল করিম ঃ

অসহায়ের কান্না দেখে কাঁদে যে প্রাণ দুঃখে
এমন মানুষ হাজারটা নয় একটা থাকুক লক্ষে।

মানুষ মানুষের জন্য। এখনো বেঁচে আছে মানবতা। এখনো অসহায়, হত- দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভুলে যায় না মানবতাবাদী লোক। এদের কারণে বোধহয় পৃথিবী এত সুন্দর।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব সারা বিশ্বকে থমকে দিয়েছে । কর্মহীন হয়ে পড়ছে শ্রমজীবী মানুষ। কারণ, ইতোমধ্যে এই ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে স্বাস্থ্য বিধি অনুযায়ী সব কিছু বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এতে করে দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছে অনেকে।

এমনই এক পরিবারের কথা তোলে ধরে ১১ মে ২০২০ সংবাদ প্রকাশ কক্সটিভি. কম অনলাইন পোর্টাল। ” চকরিয়ায় ১ টি পরিবারে নিরব কান্না, খাদ্য সংকটে মানবেতর জীবনযাপন, সত্যিকার মানবদরদীকে এগিয়ে আসার আহবান ” শীর্ষক সংবাদে
কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার বরইতলী ইউনিয়নের এক অসহায় দিন মজুরের পরিবারের দুঃসহ এবং অসহায় জীবন – যাপন নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছিল। আর সে নিউজে অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়ানোর জন্য সমাজকর্মী, বিত্তবানদদের এগিয়ে আহ্বান জানানো হয়েছিল।

তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল ১১ মে /২০২০ তারিখ সেই পরিবারের খোঁজ নিয়ে রাতেই খাবার পৌছে দিলেন সত্যিকার মানবদরদী চকরিয়া পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় কাউন্সিলর যুব সমাজের অাইডল রেজাউল করিম।
অসহায় সেই পরিবারে চাল, ডাল, আলু সহ খাবার জাতীয় সামগ্রী পৌছে দেন। অথচ একটি ছবিও তোলেননি।
কাউন্সিলর রেজাউল করিমের এমন মহানুভবতা সত্যিকার একজন মানবপ্রেমিকের পরিচয় মিলে। অনেকে সামান্য কিছু দান খয়রাত করে নিজেকে পরিচয় করতে কত ছবি, সেল্ফী তুলতে আর বিজ্ঞাপন করতে ব্যতিব্যস্থ সেখানে হাজারো সেল্ফীবাজ, পিকছার নেতা, ফোকাসদরদীকে ডিঙ্গিয়ে যুগে যুগে সত্যিকার মানবদরদীর আবির্ভাব ঘটে। ঠিক তেমনি একজন বলা চলে কাউন্সিলর রেজাউল করিমকে। এখানে বলা বলাবাহুল্য তিনি কাউন্সিলর রেজাউল করিম নিজ এলাকার পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ডে প্রথম ধাপে ১১৪০ পরিবার, প্রবাসী ও মধ্যবিত্ত পরিবারের প্রতি রাতে ৫০/৬০ জন করে প্রায় ৭৬০ টি পরিবারে নিজ অর্থায়নে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

আর তিনি যে পরিবারটির পাশে দাঁড়িয়েছেন তারা নিজ এলাকার কেউ নয়, জানা নেই, পরিচয় নেই, কখনো দেখাও হয়নি। শুধু মাত্র নিজের মূল্যবোধ থেকে মানুষ হয়ে মানুষের কষ্ট সহ্য করতে না পেরে ভিন্ন ইউনিয়নের অসহায় পরিবারে মানবতার ডাকে সাড়া দিয়েছেন কাউন্সিলর রেজাউল
অনেক মানব দরদী আছেন নিজ এলাকার ভোটার না হলে ফিরে তাকাতেও চুলকানি শুরু হয় অথচ তারাই আবার চিল্লায় গলা ফাটায় আর সমাজ সেবার পুরষ্কার কিনে নিয়ে জাহির করে বিশিষ্ট সমাজ সেবক। এসব স্বঘোষিত সমাজসেবকের উৎপাতে আজকাল প্রকৃত সমাজসেবকরা নাকানিচুবানি খাচ্ছে।

রাতে খাদ্য সহায়তা পেয়ে অসহায় পরিবারটিতে স্বস্থি দেখা যায়। এ প্রতিবেদক পুনরায় খোঁজ নিলে পরিবারটি জানায়,” বাজান যা পেয়েছি তা দিয়ে সেহেরী খেয়েছি। নামায পড়ে দোয়া করেছি ওনার জন্য। যা কষ্টে আছি আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না। এক সাপ্তাহ ধরে যা কষ্ট পেয়েছি সহ্য করার মত নয়। ”

অন্যদিকে সমাজের হত – দরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো দেখে ইতিবাচক মন্তব্য করছে সচেতন মহল। এ সম্পর্কে তরুণ লেখক এবং কলামিস্ট তানভীর মোর্শেদ তামীম কক্সটিভিকে বলেন, আসলে আমরা এখন জাতীয় সংকটের মধ্যে আছি। এ সংকট থেকে আমরা কখন মুক্তি পাবো এখনো জানি না। করোনার প্রাদুর্ভাব যতদিন থাকবে ততদিন পর্যন্ত মানুষকে বাড়ির মধ্যেই অবস্থান করতে হবে। লকডাউনের কারণে সরকার সবকিছু বন্ধ ঘোষণা দিয়েছে। এতে করে আমাদের সমাজের কিছু হত-দরিদ্র লোক চরমভাবে অর্থনৈতিক সমস্যার সম্মুখীন হবে হচ্ছে । অনেক সময় দেখা যাবে তাঁরা খেতে পাচ্ছে না। কাজেই এখন সরকারের পাশাপাশি সকল সমাজকর্মীসহ সম্পদশালীদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করছি। না হলে আমাদের সমাজে চরম বিশৃঙ্খলা দেখা দিবে।

এ প্রতিবেদক জানতে চাইলে রেজাউল করিম বলেন, নিউজট দেখে আমি খুবই কষ্ট পেয়েছি, সাথে সাথে সিদ্ধান্ত নিই কিছু করার জন্য, ভাবছিলাম দুএকদিন পরে খাবার পৌছে দেব কিন্তু আবার চিন্তা করলাম আজকে তারা খাবে কি? রোজা রাখবে কি করে সেটা চিন্তা করেই কক্স টিভিতে দেয়া নাম্বারে যোগাযোগ করে ওই অসহায় পরিবারের প্রধানকে বরইতলীর গরুর বাজার মসজিদের পাশে ইফতারের পর থাকতে বলি। ইফতারের পর থেকে এসে মসজিদের পাশে অপেক্ষা করছিল বয়স্ক ভদ্রলোক ও তার ছেলে। আমার লোক জন দূরে থাকায় খাবার নিয়ে পৌছতে প্রায় রাত সাড়ে দশটা বেজে যায়। সাথে ছিল আাসাদুজ্জান সাগর। দেরি হওয়াতে ক্ষমা চেয়ে  নিছি। খাবার পেয়ে তারা কত খুশি হয়েছে তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। পথিমধ্যে আবার পুলিশের জেরায় পড়তে হয়েছে। যাক যৎ সামান্য খাবার নিয়ে পরিবারটির পাশে দাঁড়াতে পেরে শোকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

এদিকে অসহায়ের পাশে খাদ্য সহায়তা দেয়ায় কাউন্সিলর রেজাউল করিমকে কক্স টিভির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.