চকরিয়ার খুটাখালীতে অসহায় পরিবারের উপর হামলা ও বসতঘর গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

চকরিয়া অফিস:
চকরিয়ার খুটাখালীতে এক অসহায় পরিবারের উপর দু’দফায় হামলা ও বসতঘর গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমনকি হামলা চালিয়ে উল্টো ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী চালিয়ে যাচ্ছে বলে এমন অভিযোগও করেন ভুক্তভোগি পরিবার। উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড উত্তর মেধাকচ্ছপিয়া গ্রামে ঘটেছে এ ঘটনা।
অভিযোগে জানাগেছে, উত্তর মেধাকচ্ছপিয়া গ্রামে সোলতান আহমদের পুত্র মোঃ হোসেন তার মালিকানাধীন ভোগ দখলীয় জমি থেকে ২শতক (৬কড়া) জমি বিক্রি করেন একই এলাকার মৃত আবদুর রহমানের পুত্র মোহাম্মদ হোসেন গংকে। তন্মধ্যে ৩কড়া জমি দখলও নেন। অবশিষ্ট ৩কড়া জমি দখল নেয়নি। সম্প্রতি সোলতান আহমদের পুত্র মোঃ হোসেন তার বসতভীটার জমিতে প্রায় ১লাখ ১০ হাজার টাকা ব্যয় করে ৯/১৪ হাত বিশিষ্ট একটি গুদাম ঘর নির্মাণ করেন। জমি ক্রেতা গং দখলে নেয়া ৩কড়া জমি অস্বীকার করে অসহায় পরিবারের নির্মিত ঘরের জমির প্রতি একত্রে লুলোপ দৃষ্টি পড়ে। এলাকায় প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক হওয়ায় এনিয়ে গত ৫এপ্রিল দুপুরে ১ম দফায় অসহায় পরিবারের উপর হামলা চালানো হয়। প্রতিপক্ষের হামলায় আহত হন অসহায় পরিবারের মোহাম্মদ হোসেনের স্ত্রী ছালেহা বেগম (৪০), মুছা আলীর স্ত্রী রাশেদা বেগম (৪৫) ও সোলতান আহমদের পুত্র মোঃ হোসেন (৪৫)। আহতদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় উল্টো ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় পরিবারের বিরুদ্ধে থানায় একটি মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানী করা হয়। অভিযোগের প্রেক্ষিতে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহেবের নির্দেশে ঘটনার সরে জমিনে তদন্ত করেন উপ-পরিদর্শক নয়ন বড়ুয়া। কিন্তু পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী এনে ২৩ এপ্রিল দিন দুপুরে ২য় দফায় হামলা চালিয়ে নির্মিত ৯/১৪ বিশিষ্ট একটি গুদামঘর সম্পূর্ণ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।হামলায় নেতৃত্ব দেন মৃত আবদুর রহমানের পুত্র মোহাম্মদ হোসেন, তার ছেলে গিয়াস উদ্দিন, হেলাল উদ্দিন, মেয়ে জান্নাত আরা, মুন্নী ও স্ত্রী রহিমা খাতুনসহ অজ্ঞাত লোকজন। অভিযোগ উঠেছে; হামলায় অভিযুক্ত মোঃ হোসেনের পুত্র গিয়াস উদ্দিনকে নানান অপরাধের কারণে বিগত ২০১৯ সনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়ে গেছিলো। দীর্ঘ ১মাস ধরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আটক থাকার পর মুক্তি পেয়ে এলাকায় অপরাধ প্রবনতা আরো বেশি বাড়িয়ে দেয়। গিয়াস উদ্দিন নিজেকে কোন সময় আর্মির মেজর, কোর সময় পুলিশ অফিসারসহ প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে এলাকার সহজসরল মানুষদের হয়রাণী করে যাচ্ছে।

দু’দফা হামলায় ভুক্তভোগি অসহায় পরিবার ২৫ এপ্রিল’২০ ইং থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ভূক্তভোগ পরিবার চকরিয়া পেকুয়া আসনের মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য জননেতা আলহাজ্ব জাফর আলম এমএ ও চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ এর হস্তক্ষেপ পূর্বক আইনী সহায়তা চেয়েছেন।

চকরিয়া থানার ওসি মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, কেউ অন্যায়ভাবে জমি জবর দখল, হামলা ও ঘরভাংচুর করে থাকলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.