চকরিয়ায় অসহায় ৪ পরিবারের পাশে শিক্ষার্থী ফাহিমের উদারতা 

চকরিয়ায় অসহায় ৪ পরিবারের পাশে শিক্ষার্থী ফাহিমের উদারতা

এ.কে.এম রিদওয়ানুল করিম ঃ

মানুষ মানুষের জন্য। মানবতা অাজ নিজেই অসহায়। তবে এখনো বেঁচে আছে মানবতা। এখনো অসহায়, হত- দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভুলে যায় না মানবতাবাদী লোক। এদের কারণে বোধহয় পৃথিবী এত সুন্দর। তেমনই একজন মানবতাবাদী সমাজ কর্মী  শিক্ষার্থী ফাহিম।

কয়েকদিন আগে কক্সটিভি.কম coxstv.com অনলাইন পোর্টাল থেকে কিছু অসহায় পরিবারের দুঃসহ এবং  অসহায় জীবন – যাপন নিয়ে একটি নিউজ করা হয়েছিল। দেয়া হয়েছিল কক্স টিভির হট নং ০১৯৮৪৭৯৭৮৪০. আর সে নিউজে অসহায় পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়ানোর জন্য মানবতাবাদী সমাজকর্মীদের নিকট আহ্বান জানানো হয়েছিল।

তার ধারাবাহিকতায় সেই ৪ পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তরুণ সমাজকর্মী জেভিসির নির্বাহী সদস্য কামরুল হাসান ফাহিম।

এতে করে অসহায় পরিবারগুলোতে স্বস্থি দেখা যায়। অন্যদিকে সমাজকর্মী ফাহিম অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো দেখে ইতিবাচক মন্তব্য করছে সচেতন মহল।

এ সম্পর্কে তরুণ লেখক এবং কলামিস্ট তানভীর মোর্শেদ তামীম  কক্সটিভিকে বলেন, আসলে আমরা এখন জাতীয় সংকটের মধ্যে আছি। এ সংকট থেকে আমরা কখন মুক্তি পাবো এখনো জানি না। করোনার প্রাদুর্ভাব যতদিন থাকবে ততদিন পর্যন্ত মানুষকে বাড়ির মধ্যেই অবস্থান করতে হবে। ইতোমধ্যে সরকার সবকিছু বন্ধ ঘোষণা দিয়েছে। এতে করে আমাদের সমাজের কিছু হত-দরিদ্র লোক চরমভাবে অর্থনৈতিক সমস্যার সম্মুখীন হবে। অনেক সময় দেখা যাবে তাঁরা খেতে পাচ্ছে না। কাজেই এখন সরকারের পাশাপাশি সকল সমাজকর্মীসহ সম্পদশালীদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করছি। না হলে আমাদের সমাজে চরম বিশৃঙ্খলা দেখা দিবে।

ত্রাণ পাওয়ার পর পরিবার গুলো কান্না জড়িত কন্ঠে  বলেছেন,  সাপ্তাহ ধরে ত্রাণ পাওয়ার অাসায় স্থানীয় চেয়ারম্যানকে বহুবার অনুরোধ করেছি।  কোন কিছু না পেয়ে অামরা মানবেতর জীবনযাপন করছিলাম। অামরা কক্স টিভির হট লাইনে কল দিয়েছি। এখন ত্রাণ পেয়েছি অাপনাদের জন্য অাল্লাহর কাছে দোয়া করতেছি।

ত্রাণ দাতা ফাহিম বলেন অসহায়  ৪টি পরিবারের পাশে সাধ্যমত ত্রাণ সহযোগিতা দিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছি। ভবিষ্যতে অারো সহযোগিতা করার জন দোয়া চেয়েছেন।  তিনি পরিবার গুলোর পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিত্তবানদের এগিয়ে অাসার অাহবান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.