চকরিয়ায় এবার ক্ষুধার্ত শিশুদের অাহার দিয়ে মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন শিক্ষার্থী ফাহিম 

চকরিয়ায় এবার ক্ষুধার্ত শিশুদের অাহার দিয়ে মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন শিক্ষার্থী ফাহিম

এ.কে.এম রিদওয়ানুল করিম ঃ

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলাধীন পৌরসভার ভরামুহুরী এলাকার প্রবাসী মোঃ কামাল উদ্দীনের ছেলে এসএসসি ফল প্রত্যাশি কামরুল হাসান ফাহিমের মানবিকতার যেন শেষ নেই। করোনা মহামারীতে ঘর বন্ধি অসহায়ের মাঝে নিজের জমা করা  টিফিন খরচের টাকা দিয়ে প্রায় সপ্তাহ খানেক ত্রাণ  বিতরণ করছেন। শুধু তাই নয় করোনা দূর্যোগ শুরুর প্রথম দিকে সেনিটাইজার, মাস্ক বিতরণের মাধ্যমে অসহায়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। একজন মানবিক শিক্ষার্থী হিসেবে বরাবরেই নজরে অাসেন চকরিয়া তথা সমগ্র কক্সবাজার জেলায়। জনপ্রিয়  অনলাইন কক্স টিভিতে রীতিমত হেডলাইন হয়েছেন তিনি। তার নিত্য নতুন মানবিক কর্মতৎপরতা নিয়ে নিউজ করেছেন ১০ টিরও  অধিক অনলাইন নিউজ পোর্টাল। সামাজিকভাবে সকলের পরিচিতি লাভ করেছেন বটেই প্রসংসার জোয়ারে ভাঁসছিলেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছিলেন অনেকের টাইম লাইনে।

এবার সবকিছুকে ছাড়িয়ে নতুন করে মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ফাহিম। অার তা হল শিক্ষার্থী ফাহিম চকরিয়া উপজেলায় হাজিয়ান আমতলী ও বার আউলিয়া নগর, দুই জায়গায় ৬০ জন ক্ষুধার্ত পথশিশু ও এতিমদের মাঝে রান্না করা  খাবার বিরানীর প্যাকেট  বিতরণ করেন কামরুল হাসান ফাহিম। এসব শিশুরা যেখানে ঠিকমত খাবারই পাচ্ছে না তারা এসময়ে সু্স্বাধু বিরানীর খাবার প্যাকেট পেয়ে অনেকে উচ্ছ্বাসিত হয়েছেন। অাবার অনেকে খুশিতে কান্না করেছেন। ইতিমধ্যে তার সাথে পথ শিশুদের খাবার বিতরণের ছবি ভাইরাল হয়েছে ফেসবুকে।

 

ফাহিম তার আগে চকরিয়া উপজেলায় বিভিন্ন জায়গায় খেটে খাওয়া ২০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন, এবার  ৫ম ধাপে ৬০ জন এতিম ও পথশিশুদের মাঝে খাবার বিতরণ করতে পেরে মহান অাল্লাহ তালার কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করেছেন।

তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন তার মমতাময়ী মা বাবার জন্য। যারা তাকে এসব মহৎ কর্মে এগিয়ে অাসার জন্য সর্বাত্মক সাহস যোগাচ্ছেন। নিজের জন্য দোয়া চেয়ে বলেন, সবাই অামার জন্যও  দোয়া করবেন,  ভবিষ্যতে যেন অারো  অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পারেন।

খাবার বিতরণে তার সহযোগী হিসেবে ছিলেন, শাহেদ, মামুন, সিফাত, সাকিব,নিশাত সহ আরও অনেকে। তিনি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানান মহৎ কাজে পাশে থেকে সহযোগিতা করার জন্য।

 

মানুষ মানুষের জন্য এ কথাটি সম্পদশালী অনেকের কাছে অগ্রহণযোগ্য। যার কারণে এমন দূর্যোগে এখনো মানুষের নিরব কান্নার সুর তাদের কানে পৌঁছায় না। এর ব্যতিক্রম একজন ছাত্র ফাহিম এর মানবতার দৃষ্টান্ত বর্তমান সময়ে অসহায়ের মাঝে অনেকটা স্বস্তি এনে দেয়।

কৃতি ছাত্র ও সামাজিক সংগঠক কামরুল হাসান ফাহিমের স্কুলে অধ্যায়নরত অবস্থা থেকে আজ অবধি পিতার দেওয়া টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে নিম্নবিত্ত, অসহায় মানুষের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।  নিজেই প্রতিষ্ঠত হয়নি,সবে মাত্র এস. এস. সি পরীক্ষা দিয়েছে।  সামনে পড়ে অাছে তার জীবন গঠনের বিরাট স্বপ্নময় এক উদিয়মান ভবিষ্যৎ। তার এ সময়ে নিজের জীবন গঠনের স্বপ্ন বাস্তবায়নের চিন্তায় বিভুর থাকার কথা। অথচ জাতির এমন করোনা ক্রান্তিকালে তার এমন সব চিন্তায় বাদ। বাবা মার দেয়া টিফিন খরচের টাকা বাঁচিয়ে জমিয়ে রাখা অর্থায়নে চকরিয়া পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের  নিম্নবিত্ত পরিবারের কাছে চাল, ডাল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

তার এমন মানবিক কর্মকান্ড অব্যাহত রাখতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.