ফাইতং বাঙ্গালী পাড়ায় বাগানে ফের অগ্নিকান্ড ৫লক্ষাধিক টাকার গাছ পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিবেদক,চকরিয়া
ফাইতং বাঙ্গালী পাড়া লতিয়ারডেবায় ২০ একর বিশিষ্ট একটি গাছ বাগানে দূর্বৃত্তরা আগুন দিয়ে ৫ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের প্রায় ৫ হাজার মতো গাছ পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ৮মার্চ বিকাল ৩টার দিকে ঘটেছে এ ঘটনা।
অভিযোগে জানাগেছে, চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর জিদ্দাবাজার এলাকায় বসবাসকারী ও লামার উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের বাঙ্গালী পাড়া গ্রামের মৃত মাহবুব আলী (রহমান) এর পুত্র আবু ওমর মো: ফারুক এর মালিকানাধীন ফাইতং বাঙ্গালী পাড়া লতিয়ারডেবায় আর হুল্ডিং ২৫৯৫, ১৫০, ১৫১ ও ১৪৯ এ প্রায় ২০ একর পরিমাণে বাগান জমি রয়েছে। উক্ত বাগান থেকে ইতিপূর্বে প্রায় ২ হাজার ৫শত বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কর্তনের অভিযোগে লামা থানায় মামলা হয়েছে। উক্ত মামলায় আসামী করা হয়েছে একই এলাকার মৃত গুরা মিয়ার পুত্র জালাল উদ্দিন, তার স্ত্রী শাহিনা আক্তার ও ছেলে আপেল কাদের ও রুহুল কাদেরসহ অজ্ঞাত ৫/৬জনকে। ওই মামলা প্রত্যাহার করে নিতে সম্প্রতি সময় থেকে বাদীকে বিভিন্নভাবে হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিলো। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৫ ফেব্রুয়ারী বিকেল ৩টার দিকে বাগানে আগুন দেয় একদল দূর্বৃত্ত। আগুনে ৫একর বাগানের বেলজিয়াম, আকাশমনি, ম্যালেরিয়া, গামারীসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৫ হাজার ছোট-বড় গাছ পুড়ে অন্তত মতো গাছ পুড়ে ৫লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। ওই ঘটনায় প্রশাসনিক প্রতিকার না পেতেই নতুন করে গত ৮মার্চ বিকাল ৩টার দিকে পূণরায় বাগানে আগুন দেয় দূর্বৃত্তরা। বাগানে দাউ দাউ করে আগুনে গাছ পুড়িয়ে যাওয়ার সময় আগুন নেভানোর চেষ্টা চালান ওই এলাকার গুরা মিয়ার পুত্র ফরিদুল আলম, জসিম উদ্দিনের পুত্র জিসান উদ্দিন, রশিদ আহমদের পুত্র মো: সোহেল, বাগান মালিক ওমর ফারুকের পুত্র সাঈদ মো: আবদুল্লাহসহ প্রতিবেশিরা। আগুন নেভাতে যাওয়ার সময় উল্লেখিত জালাল উদ্দিন ও তার স্ত্রীকে বাগান হতে বের দেখেন বলে জানান তারা।
বাগান মালিক আবু ওমর মো: ফারুক জানিয়েছেন, জালাল উদ্দিন ও তার স্ত্রী শাহিনা আক্তার দীর্ঘদিন ধরে তাদের মামলা প্রত্যাহার করে নিতে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় তার বাগানে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়েছে বলে ধারণা করেন। তিনি এনিয়ে আইনের আশ্রয় নেবেন বলে জানান।##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.