ইসরাইলের অপরাধের দোসর ফেসবুক, গাজায় বিক্ষোভে ফিলিস্তিনিরা

গাজা: একতরফাভাবে ফিলিস্তিনিদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দেয়ার প্রতিবাদে ফেসবুকের সেন্সরশিপের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে ফিলিস্তিনের কয়েক ডজন সাংবাদিক।

সোমবার গাজা শহরে জাতিসংঘের অফিসের বাইরে তারা এই প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেন।

এসময় বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন প্রতিবাদী লেখা সম্বলিত ব্যানার প্রদর্শন করেন। এতে লেখা ছিল ‘(ইসরাইলের) অপরাধের দোসর ফেসবুক’ এবং ‘(ইসরাইলের) দখলদারিত্বের সমর্থন দিচ্ছে ফেসবুক’ ইত্যাদি।

হামাসের একজন মুখপাত্র সালামা মারুফ জানান, ফেসবুক গত বছর ফিলিস্তিনিদের দুইশ’ অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। এরপর এবছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ‘ভুয়া অজুহাত দেখিয়ে’ তারা আরো শতাধিক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়।

সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যমটি ‘মত ও অভিব্যক্তি স্বাধীনতার চরম লঙ্ঘন’ করছে বলে প্রতিবাদ সমাবেশে অভিযোগ করেন তিনি।

মারুফ আরো বলেন, ইসরাইলের প্রায় ২০ শতাংশ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ‘প্রকাশ্যেই ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে সহিংসতায় উস্কানি দেয়া হচ্ছে’।

২০১৬ সালের শেষ দিকে ফেসবুক ইসরাইলের বিচার মন্ত্রণালয়ের (জাস্টিস মিনিস্ট্রি) সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। ওই চুক্তিতে ফেসবুক ফিলিস্তিনিদের ফেসবুক অ্যাকাউন্টের উপর নজরদারি করার প্রতিশ্রুতি দেয় ইসরাইলকে।

সূত্র: আল জাজিরা

আরো পড়ুন …

‘উদারপন্থী ইসলাম’ প্রতিষ্ঠায় কাজ করবে সৌদি-ব্রিটেন’

সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান বলেছেন, সৌদি আরব ও ব্রিটেন ‘উদারপন্থী ইসলাম’ প্রতিষ্ঠায় একসঙ্গে কাজ করে যাবে।

মঙ্গলবার মিসর সফর শেষে বৃটেনে যাওয়ার কথা রয়েছে সৌদি প্রিন্সের। বৃটেন সফরের আগ মুহূর্তে দ্য টেলিগ্রাফকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে ক্রাউন প্রিন্স এ মন্তব্য করেন। খবর আল আরাবিয়ার

ক্রাউস প্রিন্স বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন বৃটেন ও সৌদি আরবের সম্পর্ক জোরদার হলে দুদেশ আরও বেশি নিরাপদ হবে এবং তারা একসঙ্গে মধ্যপন্থী ইসলাম প্রতিষ্ঠা কাজ করে যাবে।

প্রিন্স সালমান আরো বলেন, উভয় দেশের মাঝে ঐতিহাসিকভাবে প্রতিরক্ষা এবং ব্যবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে। আমরা পুণরায় সে সম্পর্কে ফিরে যেতে আগ্রহী। দুদেশের মাঝে দৃঢ় সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা হলে বৃটেন ও সৌদির জনগণসহ অন্যান্য দেশের মানুষও উপকৃত হবে।

তিনি বলেন, চরমপন্থী ও সন্ত্রাসীরা তাদের এজেন্ডা ছড়িয়ে দিতে কাজ করছে। আমাদেরও উদারপন্থী ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য একসঙ্গে কাজ করে যাওয়ার প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Application to the Ministry of Information for registration.